আ.লীগ-বিএনপির শক্তির মহড়া কক্সবাজারে

আ.লীগ-বিএনপির শক্তির মহড়া কক্সবাজারে

ডেস্ক রিপোর্ট
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

পর্যটন শহর কক্সবাজারে শুরু হয়েছে সাংগঠনিক শক্তি দেখানোর প্রতিযোগিতা! পাল্টাপাল্টি মিছিল-সমাবেশ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। আগস্ট মাসের কর্মসূচী নিয়ে আওয়ামী লীগ ও কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচী নিয়ে বিএনপি কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে। দু’দলই ‘স্মরণকালের বৃহত্তম মিছিল সমাবেশ’ করে নিজেদের সাংগঠনিক শক্তির জানান দিয়েছে। যদিও পাল্টাপাল্টি কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে পেকুয়ায় ১৪৪ ধারা দিতে বাধ্য হয়েছে উপজেলা প্রশাসন। উখিয়ায়ও একইদিন কর্মসূচী ঘোষণা করেছিল দুইদল। পরে প্রশাসন উদ্যোগী হয়ে আগে-পিছে কর্মসূচী পালনের দিন ঠিক করে দেয়ায় সংঘাত এড়ানো গেছে।

শোকের মাস আগস্টকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ১৫ আগষ্টে আলোচনা সভা, শোক র‌্যালি ও গণভোজের মাধ্যমে তাদের কর্মসূচীর সূচনা করে। সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ১৭ আগস্ট এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড প্রতিবাদে বড়সড় মিছিল সমাবেশ করে আওয়ামী লীগ।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের উপস্থিতিতে ১৪ আগস্ট জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় দলের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান আন্দোলনের নামে বিএনপি শহরে বিশৃঙ্খলা করলে প্রতিহত করার ঘোষণা দেন।

১৭ আগস্ট বড় মিছিল সমাবেশ করে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ। মিছিলের নেতৃত্ব দেন উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক রত্নাপালং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা। এসময় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস.এম সাদ্দাম হোসেন।

অপরদিকে জ্বালানি তেল, সর্বগ্রাসী দুর্নীতি, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও ভোলা জেলায় পুলিশি হত্যার প্রতিবাদে কক্সবাজার জেলা বিএনপি ২৪ আগস্ট বুধবার বিশাল জমায়েত করে সাংগঠনিক শক্তির জানান দেয়। মিছিলটি কক্সবাজার ঈদগাহ্ ময়দান থেকে শুরু করে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

কক্সবাজার সদরের বিভিন্ন উপজেলা থেকে উৎসাহ-উদ্দীপনায় বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল, কৃষক দল, শ্রমিক দল, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা ভিন্ন ভিন্ন টি-শার্ট, মাথায় ক্যাপ পরিধান করে মিছিল নিয়ে গণমিছিলে যোগদান করেন।

ওই মিছিলের নেতৃত্ব দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী বিষয়ক সম্পাদক, কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সাবেক সংসদ সদস্য লুৎফুর রহমান কাজল।

পৌর বিএনপির সভাপতি রফিকুল হুদা চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও বিভাগীয় সমন্বয়ক শাহজাহান খান। বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক এড. শামীম আরা স্বপ্না।

দীর্ঘদিন পর জেলা শহরে বিএনপির বিশাল মিছিল-সমাবেশ ভাবিয়ে তুলে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকে। বিএনপির বড় জমায়েতকে ঘিরে হঠাৎ উত্তপ্ত হয়ে উঠে রাজনীতির মাঠ। এরপর ২৮ আগস্ট আরও একটি বড় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে উখিয়া উপজেলা বিএনপি। উপজেলা বিএনপির সভাপতি সরওয়ার জাহান চৌধুরীর সভাপতিত্বে কোটবাজারে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিল ও পথসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামিম।

সমাবেশে প্রধান বক্তা ছিলেন উখিয়া-টেকনাফের সাবেক সংসদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী। সমাবেশে সঞ্চালনা করেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ চৌধুরী।

২৯ আগস্ট টেকনাফেও গণমিছিল করে বিএনপি। ওই মিছিলেও বিপুল লোকসমাগম হয়।

২১ আগস্ট পেকুয়া বাজার ও চৌমুহনীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করার ঘোষণা দেয় উপজেলা বিএনপি। একই সময়ে একই স্থানে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশের পাল্টা কর্মসূচি ঘোষণা করে পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি মিছিল সমাবেশ আহ্বানকে কেন্দ্র করে সব ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পেকুয়ায় ১৪৪ ধারা জারি করে উপজেলা প্রশাসন।

২৯ আগস্ট মহেশখালীতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বিএনপি। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক এমপি আলমগীর মুহাম্মদ মাহফুজ উল্লাহ ফরিদের নেতৃত্বে বড় মহেশখালী নতুন বাজার থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে মহেশখালী পুরাতন আদালত চত্বরে এক সমাবেশে মিলিত হয়।

তবে জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে স্মরণকালের বিশাল শোক র‌্যালি করেছে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) বিকাল ৪টায় বাহারছড়া মুক্তিযোদ্ধা মাঠ থেকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস.এম সাদ্দাম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানের নেতৃত্বে শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিতে কক্সবাজারের সব উপজেলা, পৌরসভা, কলেজসহ সব ইউনিট থেকে ছাত্রলীগের অর্ধলক্ষাধিক নেতাকর্মীর সমাগম হয়।

বিশাল র‌্যালিটি প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে কলাতলী ডলফিন মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান, সহ-সভাপতি রেজাউল করিম, সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক।

পাল্টাপাল্টি মিছিল সমাবেশ, হুমকি পাল্টা হুমকিকে কেন্দ্র করে হঠাৎ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে কক্সবাজার জেলার রাজনীতির মাঠ। আওয়ামী লীগ চায় সরকারের ৩ মেয়াদের ধারাবাহিকতায় মাঠ ধরে রাখতে। বিএনপির চায় মাঠের দখল নিতে। পাল্টাপাল্টি শক্তি দেখানোর প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ায় রাজনীতি সংঘাতময় হয়ে উঠতে পারে বলে আশংকা করছেন রাজনৈতিক বোদ্ধারা।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!