মহেশখালীতে দিনদুপুরে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা

মহেশখালীতে দিনদুপুরে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা

ফারুক ইকবাল, মহেশখালী
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মুন্সিরডেইল লোয়াঙ্গে বাজারে দিনদুপুরে শত শত মানুষের সামনে আবদুল গফুর নামের এক ব্যক্তিকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে একদল সন্ত্রাসি।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

সরেজমিনে জানা যায়, টমটম ভাড়া নিয়ে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মুন্সিরডেইল লোয়াঙ্গে বাজারে স্থানীয় অছিউর রহমানের ছেলে সন্ত্রাসী ইউসুফ জালাল, তার ভাই গুরা মিয়া, আবদুল মজিদের ছেলে গিয়াস উদ্দীন ওরফে লেড়াইয়া, তার ভাই সাহাব উদ্দীন এবং ইউসুফ জালালের বোনের জামাই জমিরসহ আরও কয়েকজন মিলে স্থানীয় ফিরোজ মিয়ার পানচাষী ছেলে আবদুল গফুরকে (৪০) কুপিয়ে নৃশংস ভাবে হত্যা করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আবদুল গফুর লোয়াঙ্গে বাজারে চায়ের দোকানে বসে চা পানরত অবস্থায় সন্ত্রাসী ইউসুফ জালালসহ কয়েকজন দা, গুলি, কিরিছ, লোহার রড নিয়ে আবদুল গফুরকে হামলা করে। আবদুল গফুর দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করলে ঘাতকরা পিছু নিয়ে তাকে নৃশংস ভাবে উপর্যুপরি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, ঘাতকদের কোপে তার হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পিটে, কোমরে, মাথায়সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে সন্ত্রাসিরা। পরে স্থানীয়রা আবদুল গফুরকে উদ্ধার করে মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন স্থানীয় শিক্ষক জানান, এর আগেও ১৯৯৭ সালে স্থানীয় বাসিন্দা মাষ্টার হুমায়ুনের হাত কেটে ফেলে ওই সন্ত্রাসীরা। তাছাড়া স্থানীয় আব্দু জব্বারের হাত, রায়হান উদ্দিন রিয়ানের মাথায় কুপ, মনজুর আলমের বাম হাতের সম্পূর্ণ আঙ্গুল কেটে ফেলেছিল এই সন্ত্রাসিরাই।

মহেশখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আশিক ইকবাল জানান, লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।