প্রধান সড়ক প্রশস্ত করতে ব্যক্তিগত জমিতে ‘চিহ্ন’ দিয়েছে কউক!

প্রধান সড়ক প্রশস্ত করতে ব্যক্তিগত জমিতে ‘চিহ্ন’ দিয়েছে কউক!

নিজস্ব প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের প্রধান সড়ক প্রশস্ত করতে দুই পাশের ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা ছেড়ে দিতে সীমানা নির্ধারণ করে চিহ্ন দিয়ে দিচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।

আজ রোববার (১৮ অক্টোবর) বিকেলে কক্সবাজার শহরের রুমালিয়ারছড়া পিটি স্কুল এলাকা থেকে বার্মিজ মার্কেট পর্যন্ত প্রধান সড়কের সীমানা নির্ধারণ কাজের উদ্বোধন করেন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লেঃ কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমেদ।

কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়কের দুইপাশের সড়ক প্রশস্ত করার জন্য ব্যক্তি মালিকানাধীন ভবন, দোকান, মসজিদে সীমানা চিহ্ন দিয়েছে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক)।

স্থানীয় অধিবাসীদের অভিযোগ, কোন ধরণের নোটিশ বা বৈধ কাগজপত্র না দেখিয়ে কউকের সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে সাধারণ অধিবাসীদের মাঝে অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে। অসন্তোষ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রধান সড়কের দুইপাশের ভবন, দোকান ও জমির মালিকরা।

শহরের রুমালিয়ারছড়ার রেক্টর ভবনের মালিক মোঃ ইলিয়াস বলেন, আমার ব্যক্তিগত জায়গায় আমার ভবনটি নির্মাণ করেছি। কউক আজকে আমার ব্যক্তি মালিকানাধীন ভবন ভাঙ্গার জন্য চিহ্ন দিয়ে গেছে। কউক যে চিহ্ন দিয়ে গেছে তা ভাঙলে পুরো ভবনই ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

তিনি বলেন, দেশের কোন আইনে ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা নোটিশ ও ক্ষতিপূরণ ছাড়া ভেঙ্গে দেয়ার নিয়ম নেই।

 

রুমালিয়ারছড়ার জাহেদুল ইসলাম বলেন, উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আমার বিএস খতিয়ানের জমি ভাঙার জন্য চিহ্ন দিয়ে নির্দেশ দিয়েছেন। তারা বলছেন, আল্লাহর ওয়াস্তে জমি ছেড়ে দিতে! আমার কোটি টাকার সম্পদ তারা বেআইনি ভাবে ভেঙ্গে দিতে চাচ্ছে।

এর জন্য তিনি সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে সুষ্টু সমাধান চাচ্ছেন।

খোরশেদ আলম নামের আরেকজন বলেন, আমার ভবনের সামনে সরকারি ম্যাপে ৪২ ফিটের রাস্তা রয়েছে। ৩ ফিট খালি রেখে ভবন নির্মাণ করেছি। কউক এখন আমার ভবনের পিলারের ভেতরে আরও ২ ফিট ভাঙ্গার জন্য চিহ্ন দিয়েছে।

চৌধুরী ভবনের মালিক মাহমুদুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন, প্রধান সড়কের একটি নির্দিষ্ট পরিমাপ রয়েছে। সার্ভেয়ার দিয়ে পরিমাপ করলে সেটি বের হয়ে আসবে।

তিনি বলেন, কউকের সড়ক নির্মাণের জন্য সরকারি জায়গার পরে যদি কোন জায়গা লাগে আইনগত ভাবে তা ক্ষতিপূরণ দিয়ে অধিগ্রহণ করতে হবে।

 

তারাবনিয়ারছড়ার শাহ আলম বলেন, সরকারি ম্যাপে আমার বাসার সামনে সড়কের প্রস্থ ৩৫ ফিট। কউক ৫০ ফিট রাস্তা নির্মাণ করতে গেলে ১৫ ফিট ব্যক্তিগত জায়গা প্রয়োজন। কোন ধরণের ক্ষতিপূরণ ছাড়া কিভাবে ব্যক্তিগত ভবন তারা ভেঙে দিবে?

তারাবনিয়ারছড়ার খোরশেদ আলম বলেন, ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা সরকারি ভাবে ভাঙতে অবশ্যই যথাযথ আইনী প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে।

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ফোরকান আহমেদ বলেছেন, সড়কের প্রশস্তের জন্য সীমানা নির্ধারণ করা হচ্ছে। যারা অবৈধ দখলদার আছেন তাদের দ্রুত সরে যেতে হবে।

তিনি বলেন, সরকারী আরএস এবং বিএস দাগের বাইরে কারো জায়গা নেয়া হবে না। যদি সড়কের সৌন্দর্য্যের জন্য কোন জায়গা দরকার হয় তা ছদগা হিসেবে চান তিনি। ওই জমি সমন্বয় করা হবে।

এদিকে রাস্তার পার্শ্ববর্তী জায়গার মালিকরা রাস্তা প্রশস্তকরণে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন। তবে কারও ব্যক্তিগত জমি যদি নিতে হয় তা উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিয়ে অধিগ্রহণ করার জন্য কউক চেয়ারম্যানের কাছে অনুরোধ করেছেন শহরবাসী।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!