সন্ত্রাসি গ্রুপের দুই সদস্যসহ ৩ রোহিঙ্গা ধরা, অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার

সন্ত্রাসি গ্রুপের দুই সদস্যসহ ৩ রোহিঙ্গা ধরা, অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার

নুরুল হক, টেকনাফ
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফ শরণার্থী শিবিরে ৪০০ পিস ইয়াবা ও দেশীয় অস্ত্রসহ তিন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (১৬ এপিবিএন) সদস্যরা।

শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) সন্ধায় টেকনাফের নয়াপাড়া রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের এফ/৫ ব্লক এলাকা থেকে ইয়াবা ও ধারালো অস্ত্রসহ তাদের আটক করা হয়।

আটক রোহিঙ্গারা হলেন উখিয়া উপজেলার বালুখালী ৯ নম্বর ক্যাম্পের বি/৯ ব্লকের হামিদ হোসেনের ছেলে সৈয়দুল আমিন (২৫), টেকনাফ নয়াপাড়া ক্যাম্পের ই ব্লকের ৯৭৪ নম্বর সেডের শামসুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ নুরুন্নবী (২৯) ও একই ক্যাম্পের এফ/৫ ব্লকের আব্দুস সালামের ছেলে কবির মাঝি (৫২)।

একই দিন গভীর রাতে কক্সবাজার ১৬ এপিবিএন পুলিশের অধিনায়ক হেমায়েতুল ইসলাম এই সব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ওই সময় টেকনাফের নয়াপাড়া রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের এফ/৫ ব্লকে এপিবিএন পুলিশ সদস্যরা গোপন সংবাদে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় ৪০০ পিস ইয়াবা, একটি দেশি তৈরি কিরিচ ও দুটি রামদাসহ ৩ রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়। উদ্ধার হওয়া ইয়াবা ও অস্ত্রসহ আটক রোহিঙ্গাদের টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করে তাদের বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, আটক রোহিঙ্গা সৈয়দুল আমিন উখিয়া কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের সন্ত্রাসি মুন্না গ্রুপের সক্রিয় সদস্য। সে সেখান থেকে পালিয়ে এসে টেকনাফের নয়াপাড়া ক্যাম্পের কবির মাঝির বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিল। তাছাড়া আরেক আটক রোহিঙ্গা নুরুন্নবী টেকনাফের শরণার্থী শিবিরের সন্ত্রাসী সালমান শাহ গ্রুপের সক্রিয় সদস্য।

তবে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের নির্মূলে এপিবিএন পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!