কক্সবাজারে মেয়েশিশুকে অপহরণ করে দেড়মাস ধরে ‘গণধর্ষণ’, ৪ ধর্ষক গ্রেপ্তার

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

একটি মেয়ে শিশুকে ১ মাস ১৫ দিন আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত শাহাব উদ্দিন (২৮) ও তার ৩ সহযোগিকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৭)। কক্সবাজার শহরের কস্তুরাঘাট ও শহরতলী খুরশকুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ওই ৪ জনকে আটকের পাশাপাশি ভিকটিম শিশুটিকেও উদ্ধার করা হয়েছে।

চট্টগ্রামস্থ র‌্যাব-৭ এর একটি দল বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) রাত ৮টার দিকে এই অভিযান চালানো হয়।

ধৃত ৪ জন হল ধর্ষণের ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের খরুলিয়া চেয়ারম্যান পাড়ার আবদুল গণির ছেলে শাহাব উদ্দিন (২৮), তার ৩ সহযোগি কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম উজানটিয়া গ্রামের নুর আহমদের ছেলে আরমান হোসেন (২৭), কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল ইউনিয়নের হাটখোলা পাড়ার মৃত আবদুল হোসাইনের ছেলে মোহাম্মদ নুরুল আলম (৩৮) ও একই ইউনিয়নের দক্ষিণ পেঁচারঘোনার জাফর আলমের ছেলে লোকমান হাকিম (৩৪)।

র‌্যাব জানিয়েছে, প্রথমে অভিযুক্ত প্রধান আসামী শাহাব উদ্দিনকে আটক করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে অপর ৩ জনকে খুরুশকুল এলাকা থেকে আটক করা হয়। শিশুটিকেও খুরুশকুল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব দাবি করেছে, ধৃত ৪ জন মেয়ে শিশুটিকে অপহরণ ও ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন।

র‌্যাব সূত্র মতে, কিছুদিন আগে অপহৃত মেয়ে শিশুটির মা চট্টগ্রামস্থ র‌্যাব কার্যালয়ে একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগে বলা হয়, গত ১ সেপ্টেম্বর শাহাব উদ্দিন (২৮) ও তার ৩ সহযোগি মিলে তার ছোট মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে প্রায় দেড় মাস অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে ধর্ষণ করছে। এই অভিযোগ পেয়ে ঘটনার সত্যতা যাচাই ও আসামীদের গ্রেপ্তারে ছায়া তদন্ত শুরু করে র‌্যাব। এক পর্যায়ে র‌্যাব গোপন সূত্রে সংবাদ প্রায় শাহাব উদ্দিন ও তার ৩ সহযোগি কক্সবাজার সদর উপজেলা এলাকায় অবস্থান করছে। কিন্তু তারা অবস্থান পরিবর্তন করায় তাদের গ্রেপ্তার কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়ে।

র‌্যাব জানিয়েছে, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে গত বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) র‌্যাব-৭ এর একটি দল কক্সবাজার শহরের কস্তুরাঘাট ও খুরুশকুল ইউনিয়নে অভিযান চালায়। ওই সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালানোর চেষ্টা করলেও প্রধান অভিযুক্ত শাহাব উদ্দিনসহ ৪ জনকে আটক করতে সক্ষম হয় র‌্যাব সদস্যরা।

ধৃত আসামি ও ভিকটিম মেয়ে শিশুটিকে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কক্সবাজার সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করেছে র‌্যাব।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!