ঈদগড় সড়কের সেই ডাকাতি : শিল্পী জনি’র পর মারা গেলেন আরেক যাত্রী

ফলোআপ গুলিতে নয়, ডাকাতের চাইনিজ কুড়ালের আঘাতেই খুন হয়েছেন কণ্ঠশিল্পী জনি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঈদগড়
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের কাছের উপজেলা রামুর ঈদগড়ে বৃহস্পতিবারে সংঘটিত ডাকাতির ঘটনায় আহত আরেক ব্যক্তি মোহাম্মদ কালুও মারা গেছেন। তিনি আজ শনিবার (১০ অক্টোবর) চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। এই ডাকাতির ঘটনায় ঘটনাস্থলের মারা যান কক্সবাজারের আঞ্চলিক গানের জনপ্রিয় কিশোর শিল্পী জনি দে রাজ।

জানা যায়, বৃহস্পতিবারে ঈদগাঁও থেকে ঈদগড় অভিমুখে আসার পথে একটি যাত্রীবাহী সিএনজি হিমছড়ি ঢালা এলাকায় ডাকাতের কবলে পড়ে। এ সময় উদীয়মান তরুণ শিল্পী জনি দে রাজ ডাকাত দলের আঘাতে নির্মমভাবে নিহত হন। একই ঘটনায় অপর যাত্রী মোহাম্মদ কালু আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

অপরদিকে স্থানীয় ঈদগড় বাজারে শিল্পী জনি হত্যার প্রতিবাদে সিএনজি ও টমটম শ্রমিকের উদ্যোগে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, ঈদগড় ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভুট্টো, গর্জনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, খুনিয়াপালং ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মাবুদ।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ওসমান সরওয়ার আলম, নীতিশ বড়ুয়া, তপন মল্লিক, মনিরুল ইসলাম, আব্দুস সালাম, শাহাজাহান, অধীর দে,মৌলভী সৈয়দুল হক, মাস্টার জসিম উদ্দিন, বদরউদ্দিন হেলালী প্রমূখ।

বক্তাগণ অতিসত্বর শিল্পী জনির হত্যাকারিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

প্রধান অতিথি বিষয়টি আমলে নিয়ে জরুরি ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!