২০০৬ সালেই অবসরের ঘোষণা দিয়েছিলেন ধোনি!

শনিবার (১৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় সবাইকে চমকে দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন ভারতীয় দলের সফলতম অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচ তিনি খেলেছেন ২০০৪ সালে আর সবশেষ ম্যাচ হয়ে আছে ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি।

প্রায় দেড় দশকের ক্যারিয়ারে ৫৩৮টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন ধোনি। দীর্ঘ এ ক্যারিয়ারের আনুষ্ঠানিক বিদায়ঘণ্টা শনিবার বাজালেও, আজ থেকে প্রায় ১৪ বছর আগেই অবসরের কথা বলেছিলেন ধোনি। তাও রীতিমতো পুরো দলের সামনে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়ার মতো করেই।

তবে সেবার নিছকই মজা করেছিলেন ধোনি। উপলক্ষ্য ছিল টেস্ট ক্রিকেটে তার প্রথম সেঞ্চুরি। পাকিস্তানের বিপক্ষে ফয়সালাবাদে সেঞ্চুরি করে ড্রেসিংরুমে ফেরার পর বলেই দিয়েছিলেন, এখন তিনি ক্রিকেট ছেড়ে দিতে পারেন। কেননা তার বড় চাওয়া ছিল টেস্ট সেঞ্চুরি এবং সেটি তিনি পেয়ে গেছেন।

ধোনির অবসরের পর এ ঘটনাটি জানিয়েছেন ফয়সালাবাদ টেস্টে অল্পের জন্য সেঞ্চুরি না পাওয়া ভিভিএস লক্ষ্মণ। স্টার স্পোর্টসের ক্রিকেটে কানেক্টেড শো’তে লক্ষ্মণ বলেছেন, ‘আমার এখনও মনে আছে, (সেঞ্চুরি করে) সে ড্রেসিংরুমে ফেরার পর জোরেই বলে উঠল, আমি অবসরের ঘোষণা দিতে যাচ্ছি। আমি, মহেন্দ্র সিং ধোনি, টেস্ট ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করেছি, আর কী চাই! ক্রিকেট থেকে আমার আর চাওয়ার কিছু নাই। ধোনির এ কথায় তো আমরা সবাই হতবাক হয়ে যাই। ধোনি আসলে এমনই ছিল।’

ঝাঁকড়া চুলের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যানের আরেকটি মজার ঘটনা জানিয়েছেন লক্ষ্মণ। যেখানে পুরো দলকে বহন করা টিম বাসটি নিজেই চালিয়েছিলেন ধোনি। তাও বাসের নিয়মিত চালক থাকার পরেও।

লক্ষ্মণের ভাষায়, ‘ধোনি তখন (২০০৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ) অধিনায়কত্ব পায়। কারণ অনিল কুম্বলে এক ম্যাচ খেলেই অবসর নিয়ে নেয়। নাগপুরে একদিন সে বাসের চালককে বলে পেছনে বসতে এবং টিম বাসটা মাঠ থেকে হোটেল পর্যন্ত নিজেই চালিয়ে নিয়ে যায়। ভারতীয় দলের অধিনায়ক বাস চালাচ্ছে! ভাবাও যায় না। কিন্তু ধোনি আসলে এভাবেই সবকিছু উপভোগ করত। মাঠের ভেতরে সে একরকম ছিল কিন্তু মাঠের বাইরে পুরো ভিন্ন।’

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!