‘পিবিআই’র জন্য জমি অধিগ্রহণে জালিয়াতি’ সংবাদের প্রতিবাদ

‘পিবিআই’র জন্য জমি অধিগ্রহণে জালিয়াতি’ সংবাদের প্রতিবাদ

গত ১৩ ও ১৪ আগস্ট দৈনিক কক্সবাজার, সকালের কক্সবাজার, আজকের কক্সবাজার বার্তা এবং আরো কয়েকটি অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত ‘পিবিআই’র জন্য জমি অধিগ্রহণে জালিয়াতি’ শীর্ষক সংবাদটি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন এবং হিংসাত্মক।

প্রকৃত তথ্য হচ্ছে, পিবিআই এর কার্যালয় নির্মাণের জন্য আমাদের (এড. নূরুল হক, এড. মোঃ নাসির উদ্দীন, মোঃ ইদ্রিস সিআইপি, বেলায়েত হোসেন ও মোঃ ইলিয়াছ ব্রাদার্স, স্বত্ত্ব দখলীয় ঝিংলজা মৌজার বিএস ২০৩০৬ দাগের ১৮ শতক, ২০৩০৭ দাগের ৭৫ শতক, ২০১৬৩ দাগের ৫ শতক এবং ১৭০৫০ দাগের ২ শতক মিলে মোট এক একর জমির অধিগ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়। সে মোতাবেক জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখা থেকে অধিগ্রহণের প্রস্তাবনা থেকে শুরু করে ৩-৮ ধারা নোটিশ জারি হয় আমাদের নামে। তার অংশ হিসেবে রোয়েদাদ, ফিল্ডবুক যৌথ তদন্ত ও মালিকানা স্বত্ত্ব অধিকতর যাচাই-বাছাইপূর্বক আমাদের (এড. নূরুল হক, এড. মোঃ নাসির উদ্দীন, মোঃ ইদ্রিস সিআইপি, বেলায়েত হোসেন ও মোঃ ইলিয়াছ ব্রাদার্স) ক্ষতিপূরণের চেক প্রদান করে ভূমি অধিগ্রহণ শাখা। কিন্তু পরবর্তীতে স্থানীয় মোঃ ইলিয়াছ প্রকাশ ঠুয়া ইলিয়াছ নামের এক ব্যক্তি জেলা প্রশাসকের কাছে একটি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগটি পেয়ে আবারো অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক মহোদয়। তাঁর নির্দেশ মোতাবেক আরো অধিকতর তদন্তের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবন্তী রায়কে আহ্বায়ক করে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ আশরাফুল আবছার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) আমিন আল পারভেজের সমন্বয়ে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওই তদন্ত কমিটি অধিগ্রহণকৃত জমির স্বত্ত্ব বিষয়ে সরেজমিন পরিদর্শন, সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মতামত ও দালিলিক প্রমাণাদির ভিত্তিতে জেলা প্রশাসকের কাছে তাদের পূর্ণাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করেন। ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে মোঃ ইলিয়াছ প্রকাশ ঠুয়া ইলিয়াছের অভিযোগটি মিথ্যা প্রমাণিত হয় এবং তা খারিজ হয়ে যায়। এতে আর কোনো আইনগত বাধা না থাকায় আমাদের অর্থাৎ এড. নূরুল হক, এড. মোঃ নাসির উদ্দীন, মোঃ ইদ্রিস সিআইপি, বেলায়েত হোসেন ও মোঃ ইলিয়াছ ব্রাদার্স’র নামে অধিগ্রহণের টাকা ছাড় দিতে আর কোনো বাধা থাকে না।

মিথ্যা অভিযোগ খারিজ হয়ে যাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ভূমিদস্যু ইলিয়াছ প্রকাশ ঠুয়া ইলিয়াছ, এন. আলম প্রকাশ কেরোসিন নুরুল আলম (চাকমারকুল) ও সরকারি পাহাড় জবর দখলকারী নুরুল আলম গং তারা হিংসাত্মক ও প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে আমাদের নামে কয়েকটি পত্রিকা ও অনলাইনে ভুঁয়া ও মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করিয়েছে দৃষ্ট হয়। আমরা উক্ত মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি এবং এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করছি।

এখানে উল্লেখ্য, এন. আলম প্রকাশ কেরোসিন নুরুল আলম (চাকমারকুল) অনলাইনে প্রকাশিত ওই ভুঁয়া সংবাদটি তার নিজস্ব ফেসবুকের আইডিতে আট শেয়ার করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আইনের বিধান লঙ্ঘন করেছেন। তাই আমরা সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

প্রতিবাদকারী
এড. নূরুল হক, এড. মোঃ নাসির উদ্দীন, মোঃ ইদ্রিস সিআইপি, বেলায়েত হোসেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!