মেজর সিনহার মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করল পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন

কক্সবাজার জেলার টেকনাফে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানের মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন। একই সঙ্গে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সোশ্যাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন মাধ্যমে অপপ্রচারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে পুলিশের এই সংগঠনটি। বৃহস্পতিবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই দুঃখ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে তারা।

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ডিএমপি কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ৩১ জুলাই (২০২০) কক্সবাজার জেলার টেকনাফে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহত হওয়ার বিষয়টি একটি অত্যন্ত অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত ঘটনা। এ ঘটনায় পুরো দেশবাসীর মতো বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য অত্যন্ত দুঃখিত ও মর্মাহত। এ ঘটনার নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, এ ঘটনার দায়-দায়িত্ব নির্ধারণে প্রয়োজনীয় সর্বাত্মক আইনি ও প্রশাসনিক সহযোগিতা প্রদানে তাদের যৌথ উদ্যোগে আশান্বিত বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন।

বাংলাদেশ পুলিশ এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধ এবং আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণে অঙ্গীকারবদ্ধ বলেও জানানো হয় ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতিতে আরও জানানো হয়, সিনহা হত্যার ঘটনাকে উপজীব্য করে একটি স্বার্থান্বেষী মহল ফেসবুক, ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এবং কিছু কিছু প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে ব্যবহার করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নানামুখী অপপ্রচার চালিয়ে চলমান আইনি কার্যক্রমকে প্রভাবিত ও বাধাগ্রস্ত করার জন্য তৎপর রয়েছে। উদ্ভূত এ পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রের অতি গুরুত্বপূর্ণ দুটি পেশাদার বাহিনীকে মুখোমুখি দাঁড় করানোর এ অপচেষ্টা অত্যন্ত দুঃখজনক ও অপ্রত্যাশিত বলে দাবি করা হয় সেই প্রেস রিলিজে।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশের ২ লাখের বেশি পুলিশ সদস্য আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, মানবাধিকার রক্ষা ও দেশের মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে নিরলসভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে অদ্যাবধি জাতীয় নির্বাচন সম্পন্নকরণ, রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন মেগা ইভেন্টে নিরাপত্তা প্রদানসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দুঃসময় ও যেকোনও ক্রান্তিকালে বাংলাদেশ পুলিশ ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশপ্রেম ও নিষ্ঠার সঙ্গে পারস্পরিক ভ্রাতৃত্ব, সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির আবহে একযোগে কাজ করে দেশ ও জনগণের সেবায় আত্মনিয়োগ করেছে।

ডিএমপি কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশ পুলিশ আজ বৈশ্বিক পরিমণ্ডলে রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। জঙ্গি দমনের পাশাপাশি অগ্নি সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ প্রতিরোধে বাংলাদেশ পুলিশের অনেক অকুতোভয় দেশপ্রেমিক সদস্য আত্মোৎসর্গ করেছেন। এছাড়া মাদক নিয়ন্ত্রণ, মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ, সাইবার ক্রাইম নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ পুলিশের ভূমিকা সর্বমহলে প্রশংসিত হচ্ছে।

পুলিশি সেবাকে প্রান্তিক জনগণের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ প্রবর্তন করা হয়েছে, যা ইতোমধ্যে জনগণের আস্থা ও ভালোবাসা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। পুলিশের সার্বিক কার্যক্রমে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার সম্প্রসারিত করে জনগণকে উৎকৃষ্ট সেবা প্রদানে প্রতিনিয়ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। এবং এই সেবা আরও এগিয়ে নিতে পুলিশকে একটি দক্ষ, পেশাদার ও জনবান্ধব প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে নানাবিধ যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করার কথাও উল্লেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

বিবৃতিতে বাংলাদেশ পুলিশ প্রতিশ্রুতি দেয় যে, অতীতের মতো বর্তমান সময়েও স্বার্থান্বেষী মহল বিশেষের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হয়ে আইনের সঠিক প্রয়োগ এবং জনবান্ধব পুলিশি কার্যক্রম নিশ্চিতকল্পে এ দেশের মানুষ সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে। বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন সুশীল সমাজ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়াসহ সর্বসাধারণের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!