মেজর সিনহা হত্যাকান্ডের ৩ স্বাক্ষী গেলেন জেলহাজতে, রিমান্ড শুনানি কাল

পুলিশের দায়ের করা মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার তিনজন স্বাক্ষীকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১৫)। তাদের কক্সবাজার আদালতে হাজির করা হচ্ছে। র‌্যাব ধৃত তিনজনের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে। ধৃত এই স্বাক্ষী হলেন মোহাম্মদ আয়াছ, নেজাম উদ্দিন ও নুরুল আমিন। তাদের টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের মারিশবুনিয়া এলাকা থেকে আটক করা হয়। র‌্যাব জানিয়েছে, সেনাবাহিনীর মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে ওই তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের কক্সবাজার আদালতে হাজির করা হচ্ছে। কক্সবাজার জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। আদালত সুত্র জানিয়েছেন, র‌্যাবের পক্ষ থেকে রিমান্ডের আবেদন করা হলেও আজ মঙ্গলবার (১১ আগষ্ট) আদালত বন্ধ থাকায় রিমান্ড শুনানি হয়নি। আগামিকাল বুধবার রিমান্ড শুনানি হতে পারে। সুত্র মতে, পুলিশের দায়ের করা হত্যা মামলায় ওই তিন ব্যক্তি স্বাক্ষী ছিলেন। কিন্তু এরা বিভিন্ন সময়ে মিডিয়া ও তদন্তকারি সংস্থাকে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিয়েছেন। প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের টেকনাফ উপজেলাধীন বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর পুলিশ চেকপোষ্টে সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর অব. সিনহা মো. রাশেদ খানকে গুলি করে হত্যা করে পুলিশ। এই ঘটনায় টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ও পরিদর্শক লিয়াকত আলী, ওই মামলার বাদী উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দদুলাল রক্ষিতসহ ৭ পুলিশ সদস্য গ্রেপ্তার হয়েছেন। একই সাথে ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি লিয়াকত আলীসহ সকল পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়।

আনছার হোসেন
সম্পাদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভে পুলিশের গুলিতে নিহত মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকান্ডের ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলার ৩ স্বাক্ষীকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ওই হত্যাকান্ডে ‘জড়িত সন্দেহে’ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১৫) ওই ৩ স্বাক্ষীকে আটক করেছিল টেকনাফের বাহারছড়া এলাকা থেকে।

র‌্যাব ওই তিনজনকে মঙ্গলবার (১১ আগষ্ট) বিকালে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট হেলাল উদ্দিনের আদালতে হাজির করে। পরে তাদের ১০ দিনের রিমান্ডে আনার জন্য আদালতে আবেদন করে র‌্যাব।

আদালত র‌্যাবের আর্জি শুনে ৩ আসামিকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। একই সাথে রিমান্ডের আবেদন শুনানির জন্য আগামিকাল (১২ আগষ্ট) দিন নির্ধারণ করেন।

মেজর (অবঃ) সিনহা হত্যা মামলায় সন্দেহজনকভাবে ধৃত ৩ আসামীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ৩জন আসামীকে ১১ আগস্ট বুধবার বিকেলে কক্সবাজার আদালতে আনা হয়। সরকারি ছুটিকালীন দায়িত্বে থাকা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাং হেলাল উদ্দিন তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

কক্সবাজারে পুলিশের আদালত পরিদর্শক (কোর্ট ইন্সপেক্টর) প্রদীপ কুমার দাশ সাংবাদিকদের এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

র‌্যাব সুত্র জানিয়েছেন, আজ মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) ভোর রাতে টেকনাফ থানায় করা পুলিশের ওই মামলার ৩ স্বাক্ষীকে আটক করে র‌্যাব।

কক্সবাজারস্থ র‌্যাব-১৫ এর উপ-অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসান সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়েছেন।

সুত্র মতে, ধৃত মোহাম্মদ আয়াছ, নেজাম উদ্দিন ও নুরুল আমিন মেজর অব. সিনহা মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলায় স্বাক্ষী হিসেবে নাম রয়েছে। তবে মেজ সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে করা মামলায় এরা কেউ আসামি হিসেবে নেই।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!