শেখ রাসেল পুনর্বাসন কেন্দ্রের তিনতলা থেকে লাফ দিল কিশোরী, ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

শেখ রাসেল পুনর্বাসন কেন্দ্রের তিনতলা থেকে লাফ দিয়ে মৃত্যুশয্যায় কিশোরী, ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

মহিউদ্দিন মাহী
প্রধান প্রতিবেদক, কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার শহরের খুরুশকুল রাস্তার মাথায় আনাস ভিলা’য় শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের ৩য় তলা থেকে লাফ দিয়ে পালাতে গিয়ে এখন মৃত্যু যন্ত্রণায় কাতরাছে এক কিশোরী। তার প্রকৃত নাম হুসনে আরা হলেও পুনর্বাসন কেন্দ্রে দেয়া নাম ‘পায়রা’। ১২ বছরের এই কিশোরী কক্সবাজারের বৃহত্তর উপজেলা চকরিয়ার মোঃ সেলিম নামের এক ফল ব্যবসায়ীর মেয়ে।

ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (৮ আগষ্ট) রাত সাড়ে ৯টায়। যদিও এই ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে চেয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

সূত্র মতে, আনাস ভিলা নামের ওই ভবনের ‘শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে’র ৩য় তলা থেকে একটি দোকানের টিনের ছাউনিতে উচ্চ শব্দে কি যেন পড়ে। বিকট শব্দ পেয়ে দোকানের লোকজন এবং ওই ফ্ল্যাটের নিরাপত্তাকর্মী বের হয়ে দেখতে পান পুনর্বাসন কেন্দ্রে থাকা ১২ বছরের এক কিশোরী দোকানের ছাউনিতে আটকে আছে। ওই সময় মুমূর্ষূ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে টমটম যোগে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে জরুরী বিভাগে চিকিৎসা দিয়ে তাকে হাসপাতালের ৫ম তলায় ভর্তি রাখা হয়েছে।

সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানিয়েছেন, উপর থেকে পড়ার কারণে মারাত্মক আহত হয়েছে এই কিশোরী। এছাড়াও টিনের আঘাতের কারণে শরীরের অবস্থা খুব খারাপ হয়েছে।

এদিকে অভিযোগ রয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্বরত কর্মকর্তারা অফিসের সময়ে সেখানে থাকেন না। এছাড়াও যাদের রাতের ডিউটি থাকার কথা তারা দরজার বাইরে থেকে তালা দিয়ে তাদের বাড়িতে চলে যান। করোনার এই কঠিন মুহুর্তেও এই অবস্থা করেছেন কর্মকর্তারা। দীর্ঘদিন ধরে এই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা চরম দায়িত্বে অবহেলা করে আসছেন।

এদিকে বিষয়টি চুপিচাপি করে চিকিৎসা দিতে চেয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির দেখভালের দায়িত্বে থাকা কক্সবাজার সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোঃ ফরিদুল আলমকেও বিষয়টি জানানো হয়নি। পরে কক্সবাজার ভিশন ডটকমের এই প্রতিবেদক তাঁকে অবগত করলে তিনি বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখেন। আজ রোববার সকালে সরাসরি তিনি ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে যাবেন বলেও কক্সবাজার ভিশন ডটকমকে জানিয়েছেন।

এদিকে শেখ রাসেল পুনর্বাসন কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা সুজন কুমার সূত্রধর কক্সবাজার ভিশন ডটকমকে জানান, পুনর্বাসন কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়া এই শিশু দুর্ঘটনাবশত পড়ে গিয়ে আহত হয়েছে। পরে হাসপাতালে তারা ভর্তি করিয়েছেন।

প্রতিষ্ঠানটির আরেক কর্মকর্তা কেইস ম্যানেজার সাবিনা ইয়াসমিন জানান, যে মেয়েটি আঘাত পেয়েছে সে ব্যালকনি থেকে পালাতে চেয়েছিল। এর আগেও অনেকবার পালাতে চেয়েছিল হুসনে আরা পায়রা।

সাবিনা ইয়াসমিন জানান, ১২ বছরের এই শিশুর পরিবারে সমস্যাগত কারণে এই প্রতিষ্ঠানে রেখেছে। চকরিয়ায় তার বাবার বাড়ি থেকেও কম করে হলেও ১০০ বার পালিয়েছে। সর্বশেষ চকরিয়া থানা থেকে তাকে এখানে আনা হয়েছে। অনেকটা ভারসাম্যহীন ধরা যায় তাকে।

কেইস ম্যানেজার সাবিনা ইয়াসমিন দাবি করেন, আহত কিশোরী হুসনে আরা প্রায় সুস্থ থাকে। তার এমন কিছু হবে না।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!