ফাহিমের সম্ভাব্য খুনিকে চিনতে পেরেছে মার্কিন পুলিশ?

বাংলাদেশের রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাও-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহর সম্ভাব্য খুনিকে চিনতে সক্ষম হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশ। সে দেশের সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক পোস্ট স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার একাধিক পুলিশ সূত্রকে উদ্ধৃত করে এ তথ্য জানিয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটন এলাকার নিজ অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ফাহিমের ক্ষতবিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ব্যবসায়িক বিরোধের কারণে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় শুক্রবার (বাংলাদেশ সময় শনিবার) প্রকাশিত নিউ ইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফাহিমের সম্ভাব্য খুনিকে (পারসন অব ইন্টারেস্ট) শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে নিউ ইয়র্ক পুলিশ। এ ব্যাপারে পুলিশের একাধিক সূত্র তাদের নিশ্চিত করেছে। তবে তদন্তের স্বার্থে বিস্তারিত কোনও তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে তারা।

পুলিশ সূত্রে নিউ ইয়র্ক পোস্ট জানিয়েছে, সম্ভাব্য ওই খুনি নিরাপত্তা হেফাজতে নেই। তাকে এখনও গ্রেফতার দেখানো হয়নি।

স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে সিএনএন জানিয়েছে, নজরদারি ক্যামেরায় ধারণকৃত ফুটেজে ফাহিমকে সর্বশেষ অ্যাপার্টমেন্টের লিফটে উঠতে দেখা গেছে। ওই লিফটে তার সঙ্গে সম্পূর্ণ কালো পোশাক পরা একজনকে প্রবেশ করতে দেখা গেছে। লিফটটি সোজা তার অ্যাপার্টমেন্ট ইউনিটে গিয়ে থেমেছে।

ওই ব্যক্তিকেই সম্ভাব্য খুনি হিসেবে ধারণা করছে পুলিশ। তারা বলছে, ‘অপরাধীর কাছে একটা স্যুটকেস ছিল। সে ছিল খুবই পেশাদার।’ ওই ব্যক্তির পরনে ছিল স্যুট, হাতে গ্লাভস ও মাথায় হ্যাট।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) নিউ ইয়র্ক শহরের চিফ মেডিক্যাল এক্সামিনারের কার্যালয় থেকে দেওয়া ময়নাতদন্ত রিপোর্টকে উদ্ধৃত করে মার্কিন সম্প্রচারমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, হত্যার শিকার ফাহিমের শরীরে বেশ কয়েকটি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ঘাড় ও কাঁধে ছুরির আঘাতের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!