কাঁঠগড়ায় কেঁদে যা বললেন ডা. সাবরিনা

করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে জেকেজি হেলথকেয়ারের জালিয়াতির মামলায় গ্রেপ্তার জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের চিকিৎসক সাবরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত।

সোমবার (১৩ জুলাই) শুনানিকালে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে সাবরিনা বিচারকের কাছে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন সাবরিনা। বলেন, ‘জেকেজির চেয়ারম্যান আমাকে বলা হচ্ছে। কিন্তু আমি জেকেজির চেয়ারম্যান না। আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। আমি নির্দোষ।’ এ সময় আদালতে কেঁদে ফেলেন সাবরিনা।

পুলিশের রিমান্ড আবেদনের বিরোধিতা করে সাবরিনার পক্ষে জামিনের আবেদন করেন ওবায়দুল হক, সাইফুল ইসলাম সুমনসহ কয়েকজন আইনজীবী। শুনানিতে আইনজীবী সুমন আদালতকে বলেন, ডা. সাবরিনা ‘সরল ও সৎ বিশ্বাসে’ তার স্বামীর প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। তিনি জেকেজির অপকর্মের কথা ‘আগে জানতে পারেননি’। জানলে সম্পর্কচ্ছেদ করতেন।

অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কমকর্তা এস আই ফরিদ মিয়া বলেন, সাবরিনা তার স্বামীর সহযোগী হয়ে কাজ করেছেন। রোগীদের ভুয়া কোভিড-১৯ সনদপত্র (সার্ফিকেট) সরবরাহ করে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন । তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ঘটনার বিস্তারিত জানা যাবে।

শুনানি শেষে বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে এই চিকিৎসককে তিন দিনের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন।

এর আগে তেজগাঁও থানা পুলিশ সাবরিনাকে আদালতে হাজির করে তাকে চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে বেলা ১১টার দিকে ডা. সাবরীনাকে প্রথমে পুরান ঢাকার নিম্ন আদালতের গারদখানায় রাখা হয়। তখন গণমাধ্যমকর্মী ও আইনজীবীদের ভিড় ছিল চেখে পড়ার মতো। তবে ভার্চুয়াল আদালতের গেটগুলো বন্ধ করে দেওয়ায় আদালত কক্ষে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এরপর দুপুর পৌঁনে ১২টার দিকে সাবরীনাকে আদালতে হাজির করা হয়। তাকে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের ষষ্ঠ তলায় ওঠানো হয়। তখন কড়া নিরাপত্তায় দুজন নারী পুলিশ তাকে ধরে ছিলেন। পরে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনূর রহমানের আদালতের কাঁঠগড়ায় তাঁকে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়।

আদালতে তোলার পরে আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মামলার নম্বর ধরে ডাকলে কাঁঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা ডা. সাবরীনাকে তখন বিমর্ষ দেখাচ্ছিল।

প্রসঙ্গত, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী আরিফ চৌধুরী করোনার ভুয়া টেস্টের মাধ্যমে আট কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এ অভিযোগ ছিল আগে থেকে। জেকেজি হেলথ কেয়ার নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ২৭ হাজার মানুষের নুমনা সংগ্রহ করে ১৫ হাজার ৪৬০টি জাল সনদ দিয়ে এ টাকা হাতিয়ে নেন তিনি। আর এ অভিযোগেই রোববার (১২ জুলাই) ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের তেজগাঁও ডিভিশনের উপ কমিশনার (ডিসি) কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। গ্রেপ্তারের পর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট থেকে সাবরিনাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এর আগে ২৩শে জুন জেকেজির সাবেক দুই কর্মী হুমায়ুন কবির হিমু ও তার স্ত্রী সিস্টার তানজিনাকে করোনা পরীক্ষার জাল রিপোর্ট তৈরির অভিযোগে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তাদের দেয়া তথ্য মতেই জেকেজির গুলশানের অফিসে অভিযান চালিয়ে ডা. সাবরিনা চৌধুরীর স্বামী আরিফ চৌধুরীসহ প্রতিষ্ঠানের আরো কয়েকজন কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে জেকেজির সিই্‌ও হলেন আরিফ চৌধুরী ও চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরী। যদিও আরিফ চৌধুরীসহ অন্যরা গ্রেপ্তারের পর থেকে সাবরিনা চৌধুরী নিজেকে এই প্রতিষ্ঠানের কেউ না বলে দাবি করে আসছিলেন। কিন্তু পুলিশ ব্যাপক তদন্ত ও নানা তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জানতে পারে জেকেজির সঙ্গে সাবরিনার সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রতারণা মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শুরু থেকেই ডা. সাবরিনা দায় এড়ানোর চেষ্টা করছিলেন। জেকেজির সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করে আসছিলেন। বিভিন্ন গণমাধ্যমেও সাফ বলেছেন তিনি জেকেজির কেউ না। কিন্তু ব্যাপক তদন্তের মাধ্যমে এটা আগে থেকেই নিশ্চিত হওয়া যায় সরকারি চাকরির পাশাপাশি তিনি জেকেজির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এমনি প্রায় ২৭ হাজার মানুষের সঙ্গে তিনি প্রতারণা করেছেন। করোনার জাল সনদ তৈরি করে ইচ্ছেমতো পজেটিভ নেগেটিভ রেজাল্ট দিয়েছেন তার প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা। তিনি এসব বিষয়ে অবগত ছিলেন। এছাড়া তার এমন কিছু কর্মকাণ্ড রয়েছে যেগুলো থেকে নিশ্চিত হয়েছে তিনি এই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান। তিতুমীর কলেজের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় তিনি নিজে উপস্থিত থেকে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হিসেবে বক্তব্য দিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও স্ট্যাটাস দিয়েছেন। এসব বিষয় তদন্ত করে তার সম্পৃক্ততার প্রমাণ মিলেছে। এছাড়া তার স্বামী, অফিসের কর্মচারীর বক্তব্য, ফাইলপত্রে তিনি যে প্রতিষ্ঠানের সম্পৃক্ত তার প্রমাণ মিলেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, সাবরিনা ও আরিফ দম্পতির প্রতিষ্ঠান জেকেজি থেকে করোনা পরীক্ষার জাল সনদ নিয়ে প্রবাসীরা বিদেশ থেকে ফিরে এসেছেন। এতে করে বিদেশের মাটিতে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। হাজার হাজার মানুষকে জাল পজেটিভ নেগেটিভ ভুয়া সনদ দেয়া হয়েছে। সত্যিকারের পজেটিজ রোগী পেয়েছে নেগেটিভ সনদ। আর নেগেটিভ রোগী পেয়েছে পজেটিভ সনদ। এতে সংক্রমণ ছড়িয়েছে ব্যাপকভাবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে করোনা নমুনা সংগ্রহের জন্য তিতুমীর কলেজে ১টি বুথ স্থাপনের অনুমতি নিয়ে তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে ৪০টি বুথ স্থাপন করে নমুনা সংগ্রহ করেছে। ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে শুরু করে ঢাকার বাইরে নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী ও গাজীপুরের বিভিন্ন স্থান থেকেও মাঠকর্মী পাঠিয়ে বুথ স্থাপন করে নমুনা সংগ্রহ করতো। আবার তাদের হটলাইন নম্বরে রোগীরা ফোন দিলে মাঠকর্মীরা বাড়ি গিয়েও নমুনা সংগ্রহ করতেন। আবার অনেককে জেকেজির বুথের ঠিকানা দেয়া হতো। এভাবে কর্মীরা প্রতিদিন গড়ে ৫০০ মানুষের নমুনা সংগ্রহ করতেন। পরে তাদের গুলশানের একটি ভবনের ১৫ তলার অফিসের একটি ল্যাপটপ থেকে ভুয়া সনদ দিতো। ওই ল্যাপটপ থেকে জেকেজির কর্মীরা রাতদিন শুধু জাল রিপোর্ট তৈরির কাজ করতেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, সরকারি চাকরি করেও তিনি বিভিন্ন মাধ্যমে প্রভাব খাটিয়ে নিজের প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ বাগাতেন। এর বাইরে নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ড, বিশিষ্টজনের নাম ভাঙিয়ে ফায়দা নেয়া, হুমকি-ধমকি, সন্ত্রাসী বাহিনী লালন-পালনসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। জেকেজির সিইও আরিফ চৌধুরী গ্রেপ্তারের পর থেকেই নিজের গ্রেপ্তার এড়াতে বিভিন্ন স্থানে তদবির করছিলেন সাবরিনা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থেকে শুরু করে সরকারদলীয় নেতা, চিকিৎসক নেতাদের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তিনি। কেউ কেউ তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। পুলিশের সূত্রগুলো জানিয়েছে, সাবরিনা গ্রেপ্তার এড়াতে প্রভাব সৃষ্টি করেছিলেন। রোববার তিনি ডিসি কার্যালয়ে আসার পর গ্রেপ্তার হবেন সেটি ভাবেননি। যখন তিনি জানতে পারেন তাকে গ্রেপ্তার করা হবে তখন তিনি কিছুটা বিমর্ষ হয়ে পড়েন।

এদিকে ডা. সাবরিনাকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশের তেজগাঁও ডিভিশনের উপ-কমিশনার হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের বলেন, জেকেজি গ্রুপের সদস্য হুমায়ুন কবির হিমু এবং তার স্ত্রী তানজিনাকে আমরা সর্বপ্রথম গ্রেপ্তার করি। তারা আমাদের কাছে স্বীকার করে রোগীদের নমুনা সংগ্রহ করে বাসায় নিয়ে আসে। বিনিময়ে তারা দেশি মানুষের কাছ থেকে ৫ হাজার ও বিদেশির কাছ থেকে ১০০ ডলার নেন। পরে নমুনাগুলো সুবিধাজনক স্থানে ফেলে দেন। হিমু গ্রাফিক্স ডিজাইনার। সে সার্টিফিকেট তৈরি করে মেইলে পাঠিয়ে দিতো। কোর্টে তারা স্বীকারোক্তি দিয়েছে তারা জেকেজি গ্রুপের সদস্য। তাদের তথ্যের ভিত্তিতেই আমরা পরের দিন জেকেজির গুলশানের অফিসে যাই। সেখান থেকে জেকেজির সিইও আরিফ চৌধুরীসহ আরো চারজনকে গ্রেপ্তার করি। তাদের কাছ থেকেও আমরা নকল সার্টিফিকেট, ভুয়া করোনা টেস্টের আলামত জব্দ করে আনি। আরিফকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরী। বাকি পাঁচজনও একই কথা বলেছে। তারই প্রেক্ষিতে আমরা তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করার জন্য সময় নিচ্ছিলাম। কারণ তিনি একজন সরকারি ডাক্তার।

রোববার আমরা তাকে জিজ্ঞাসা করলাম- তিনি চেয়ারম্যান কিনা। তিনি বললেন, তিনি কখনই চেয়ারম্যান ছিলেন না। তখন বললাম, আমরা যেদিন দু’জনকে গ্রেপ্তার করলাম তখন আপনাকে চেয়ারম্যান থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত তিতুমীর কলেজের ঘটনার প্রেক্ষিতে আপনি জেকেজির পক্ষে দাঁড়িয়ে কথা বললেন চেয়ারম্যান হিসেবে। তখন তিনি বলেন, এটা আমার হাজবেন্ড আমাকে বলতে বলছে। এভাবে তাকে আরো বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়েছিল। তিনি কোনো প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি। যার কারণে তাকে আমরা গ্রেপ্তার দেখিয়েছি। আমরা মনে করি তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে এই কোম্পানির মাধ্যমে মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছেন, নেগেটিভকে পজেটিভ আবার পজেটিভকে নেগেটিভ বানিয়েছেন। হাজার মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন, সারা দেশে সংক্রমণ ছড়িয়েছেন, বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছেন। বিদেশ থেকে এসব জাল সনদ নিয়ে মানুষ ফিরে এসেছে। এজন্যই আমরা তাকে গ্রেপ্তার করে কোর্টে হাজির করে রিমান্ড চাইবো। রিমান্ডে আমরা আরো তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে এদের সঙ্গে যদি আরো কেউ জড়িত থাকে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তাকে কয়টি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হবে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপাতত আমরা তাকে প্রতারণা মামলায় গ্রেপ্তার দেখাবো। তবে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে যদি মনে হয় তিনি আরো কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত আছে তবে সেক্ষেত্রে অন্যান্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিসি হারুন বলেন, যেহেতু তিনি একজন সরকারি কর্মকর্তা তাই তিনি কখনই আরেকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান থাকতে পারেন না। আর মুখপাত্র হিসেবে বক্তব্য দিতে পারেন না। তার স্বামীও ইচ্ছা করলেই তাকে চেয়ারম্যান পদবি থেকে বহিষ্কার করতে পারেন না। এছাড়া তিনি ফেসবুকে ও তিতুমীর কলেজের ঘটনায় যে বক্তব্য দিয়েছেন একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে মোটেও সম্ভব না। এটার দায় তিনি এড়াতে পারেন না।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!