ভারতে নিষিদ্ধ হওয়ায় ৬ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখে ‘টিকটক’

ভারতে নিষিদ্ধ হওয়ায় ৬ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখে ‘টিকটক’

ভারতে নিষিদ্ধ হওয়ায় ৬০০ কোটি ডলার ক্ষতির মুখে পড়েছে জনপ্রিয় অ্যাপ টিকটকের চীনা নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বাইটড্যান্স। টিকটক ছাড়াও কোম্পানিটির তৈরি আরও দুটি অ্যাপ ‘ভিভা ভিডিও এবং হ্যালো’র ওপর ভারত সরকার সম্প্রতি নিষিধেজ্ঞা আরোপ করে।

গত সোমবার ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ‘দেশের সার্বভৌমত্ব ও অখণ্ডতা, প্রতিরক্ষা, রাষ্ট্রীয় সুরক্ষা ও জনশৃঙ্খলার জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর’ হিসেবে অভিহিত করে ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করার ঘোষণা দেয়; যার বেশিরভাগই চীনা কোম্পানিগুলোর তৈরি।

বাইটডান্সের পক্ষ থেকে অবশ্য ভারতের এমন অভিযোগ অস্বীকার করে বলা হচ্ছে, টিকটক ব্যবহারকারীদের তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় তারা সব সময় জোর দিয়ে এসেছে। টিকটকের মাধ্যমে কোনোভাবেই ভারতীয়দের কোনও ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হয়ে যায়নি। বাকি কোম্পানিগুলোও একই দাবি করছে।

চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যম গ্লোবাল টাইমস সূত্রের বরাতে জানিয়েছে, ‘গত মাসে সীমান্তে চীন ও ভারতের সেনাদের মধ্যে মারাত্মক সীমান্ত সংঘর্ষের পর ভারত টিকটকসহ ৫৯টি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করায় টিকটকের মূল কোম্পানি বাইটড্যান্সের ৬০০ কোটি ডলার ক্ষতি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

ভারতের অ্যাপ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তকে নজিরবিহীন হিসেবে উল্লেখ করেছে বাইটডান্স। বিদেশে সর্বাধিক জনপ্রিয় চীনা অ্যাপ হিসেবে নিজের জায়গা করে নেওয়া টিকটকের ওপর এটা একটা বিশাল আঘাত বলেই ভাবা হচ্ছে। চীনের বাইরে যেসব দেশে টিকটকের ভালো ব্যবসা হচ্ছিল তার শীর্ষে ছিল ভারত।

এ বছরের প্রথম তিন মাসে ভারতে ৬১১ মিলিয়ন টিকটক অ্যাপ ডাউনলোড হয়েছে, যা বিশ্বে মোট ডাউনলোডের ৩০ দশমিক ৩ শতাংশ।ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়া চীনা অ্যাপগুলোর মধ্যে টিকটক ছাড়াও উইচ্যাট এবং ইউসি ব্রাউজারের মতো জনপ্রিয় অ্যাপও রয়েছে।

জুনে চীনের সঙ্গে সীমান্তে সেনা সংঘাতের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতজুড়ে চীনা পণ্য বর্জনের ডাক ওঠে। তার সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই স্বল্পদৈর্ঘ্যের ভিডিও শেয়ারিং সোশ্যাল প্লাটফর্ম টিকটকসহ ৫৯টি চীনা অ্যাপের ব্যবহার নিষিদ্ধ করে ভারত সরকার। সংস্থার অধীনে ভারতে ২ হাজারেরও বেশি কর্মী কাজ করতেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!