চকরিয়ায় লকডাউন বাড়ল একসপ্তাহ, মাঠে থাকবেন ৩ ম্যাজিষ্ট্রেট

চকরিয়ায় লকডাউন বাড়ল একসপ্তাহ, মাঠে থাকবেন ৩ ম্যাজিষ্ট্রেট

ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

করোনার ‘রেড জোন’ কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভা এলাকায় আরও একসপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে লকডাউন। এনিয়ে আগের ১৪ দিনসহ একটানা ২১ দিন লকডাউন কর্মসূচী বর্ধিত করা হলো করোনার সংক্রমণ রোধে। তবে বর্ধিত একসপ্তাহ কঠোরভাবে লকডাউন কর্মসূচী বাস্তবায়নে তিনজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থাকার ঘোষণা
এসেছে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

এতে আশা করা যাচ্ছে, আগামী একসপ্তাহ যদি কঠোরভাবে লকডাউন বাস্তবায়ন হয় তাহলে রেড জোন চকরিয়া পৌরসভায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা একেবারে কমে এসে গ্রীন জোনে পরিণত হবে। তবে রেড জোনের আওতায় থাকা ডুলাহাজারা ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডে লকডাউন আর বর্ধিত করা হয়নি।

আজ শনিবার (২০ জুন) বিকেলে চকরিয়া উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির জরুরী সভায় উপস্থিত সকলের মতামতের ভিত্তিতে রেড জোন চকরিয়া পৌরসভায় লকডাউন কর্মসূচী আগামি সাতদিন পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম।

উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. শাহবাজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

সভায় উপস্থিত এমপি, ইউএনওসহ অনেকেই চলমান লকডাউন কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য উপজেলা প্রশাসনের আহবানে স্বেচ্ছায় শ্রম দেয়া সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোর কর্মীদের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়। কারণ এসব স্বেচ্ছাসেবীদের কারণেই রেড জোনে গত ১৩ দিন লকডাউন কর্মসূচী অনেকটাই সফল হয়েছে।

তবে স্বেচ্ছাসেবীরা আক্ষেপ করে বলছেন, তারা আপ্রাণ চেষ্টা করছেন করোনার সংক্রমণ রোধে প্রশাসনের ঘোষিত লকডাউন কর্মসূচী কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করতে। কিন্তু পৌরশহরে ফুটপাত দখল করে এবং ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে করে যত্রতত্র বসে যাওয়া ভাসমান দোকানগুলোর কারণে লকডাউন কর্মসূচী পুরোপুরি সফল হচ্ছে না। এক্ষেত্রে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ ও পৌরসভা কর্তৃপক্ষ যদি ভাসমান দোকানগুলো বসতে না দেয় তাহলে বেশ কাজ দেবে কঠোরভারে লকডাউন বাস্তবায়নে।

এছাড়াও বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আগত যানবাহনগুলো সরাসরি পৌর শহরে প্রবেশের বিভিন্ন সড়ক, উপ-সড়কগুলোর সীমান্তে একেবারে বন্ধ করে দিতে হবে। তাহলেই লকডাউন কঠোরভাবে বাস্তবায়ন হবে।

এ ব্যাপারে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ কক্সবাজার ভিশন ডটকমকে বলেন, ‘উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক রেড জোন পৌরসভার পুরো এলাকায় আগামি ২৮ জুন পর্যন্ত লকডাউন বর্ধিত করা হয়েছে। আগামি একসপ্তাহ পর্যন্ত কঠোরভাবে লকডাউন বাস্তবায়নে তিনজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পালাক্রমে মাঠে দায়িত্ব পালন করবেন। পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসন নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবকরাও মাঠে কাজ করবেন।’