চকরিয়ায় লকডাউন মানছে না অসচেতন মানুষ

চকরিয়ায় লকডাউন মানছে না অসচেতন মানুষ

ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

করোনার রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত হওয়া কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভা ও ডুলাহাজারায় ঢিলেঢালা ভাবে চলছে লকডাউন কর্মসূচী। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে প্রশাসনের এই উদ্যোগ সিংহভাগ মানুষ মেনে চললেও অসচেতন মানুষ অপ্রয়োজনে বাইরে বেরিয়ে পড়ছেন।

আবার চকরিয়া পৌরশহরে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী (বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা) প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দোকান খুলে প্রশাসনের সঙ্গে লুকোচুরি খেলছেন। একইসাথে ইজিবাইক (টমটম), অটোরিক্সা চালকদেরও গাড়ি নিয়ে পৌরশহরে ঘুরতে দেখা যাচ্ছে।

পর্যটনশহর ছাড়াও জেলার বিভিন্ন উপজেলায় লকডাউন কার্যকর থাকলেও চকরিয়ার বেলায় একটু ব্যতিক্রমই দেখা যাচ্ছে। তবে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে গণপরিবহন চলাচল এবং আশপাশের পাঁচ উপজেলার মোহনা হওয়ায় চকরিয়ায় লকডাউন শতভাগ বাস্তবায়নে বেগ পেতে হচ্ছে প্রশাসনকে।

সরেজমিন দেখা গেছে, লকডাউনের দ্বিতীয়দিনে চকরিয়া পৌরশহরে প্রশাসনের চোখ এড়িয়ে কিছুসংখ্যক দোকান খোলা রাখা, ইজিবাইক (টমটম), অটোরিক্সাসহ ব্যক্তিগত কিছু গাড়ি চলতে দেখা গেছে। এরপরও প্রশাসনের তৎপরতায় অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে চকরিয়ার লকডাউন পরিস্থিতি।

এদিকে চকরিয়া পৌরশহর চিরিঙ্গা ও আশপাশের এলাকায় লকডাউন পরিস্থিতি সরেজমিন দেখতে বের হন কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম। এ সময় তাঁর সাথে ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমানসহ অন্যরা।

চকরিয়ায় লকডাউন কার্যকর নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ কক্সবাজার ভিশন ডটকমকে বলেন, ‘চকরিয়া পৌরশহরটি হচ্ছে পাঁচ উপজেলার মোহনা। তাছাড়া চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে গণপরিবহন চলাচলও অব্যাহত রয়েছে। তাই বিভিন্ন উপজেলার মানুষ পৌরশহর চিরিঙ্গার ওপর দিয়েই দেশের বিভিন্নস্থানে গণপরিবহনে যাতায়াত করে থাকেন। সেজন্যই মানুষের আনাগোনা দেখা যাচ্ছে। তবে মূল পৌর এলাকায় কঠোরভাবে লকডাউনের আওতায় নেয়া হয়েছে। চকরিয়া-মহেশখালী সড়ক ছাড়া পৌরশহরে প্রবেশমুখগুলো অবরুদ্ধ করে দেয়া হয়েছে। যাতে কেউ গমণাগমন করতে না পারে।’