দেশে বিশিষ্টজন যারা করোনায় আক্রান্ত ও মারা গেলেন

দেশে বিশিষ্টজন যারা করোনায় আক্রান্ত ও মারা গেলেন

বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হয় ৮ মার্চ। সেদিন রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানিয়েছিলেন, ‘বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত তিনজন রোগী শনাক্ত হয়েছে যাদের একজন নারী, দুইজন পুরুষ। তাদের মধ্যে দুইজন ইতালি থেকে সম্প্রতি বাংলাদেশে এসেছেন। অপর একজন তাদের সংস্পর্শে এসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের বয়স ২০ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে।’

এর ঠিক ১০ দিন পর ১৮ মার্চ সেব্রিনা জানান, ‘বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তি পুরুষ। তাঁর বয়স ৭০ বছর।’

এরপর থেকে প্রতিদিনই হুহু করে বাড়ছে শণাক্ত এবং মৃতের সংখ্যা। শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, চিকিৎসক, পুলিশ, সেনাসদস্য, ব্যবসায়ী, আমলা, ব্যাংক কর্মকর্তা, দুদক কর্মকর্তা, সাংস্কৃতিক অঙ্গনের লোক কেউ-ই বাদ যাননি মৃত্যুর হাত থেকে।

সরকারি ঘোষণামতেই এ পর্যন্ত দেশে মোট কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩৬ হাজার ৭৫১ জন এবং মারা গেছেন ৫২২ জন।

প্রথম মৃত্যুর দুই মাস যেতে না যেতেই মারা গেছেন বহু বিশিষ্ঠজন, গুণীলোক, খ্যাতনামা ব্যক্তি। তাদের মধ্যে রয়েছেনঃ

অধ্যাপক আনিসুজ্জামান
শিক্ষাবিদ, লেখক ও জাতীয় অধ্যাপক। বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত একুশে ও স্বাধীনতা পদক এবং ভারত সরকার প্রদত্ত পদ্মভূষণপ্রাপ্ত।

সাবেক এমপি মকবুল হোসেন
আওয়ামী লীগ নেতা ও ঢাকার সাবেক সংসদ সদস্য। ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, সিটি ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা। এ্যমিকো ল্যাবরেটরিজ, পান্না টেক্সটাইল, মোনা ফিন্যান্সসহ কয়েকটি কোম্পানির স্বত্তাধিকারী। তার ছেলে আহসানুল ইসলাম টিটু টাঙ্গাইল-৬ আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য।

সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা নিলুফার মঞ্জুর
সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও অ্যাপেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান সৈয়দ মঞ্জুর এলাহীর স্ত্রী।

এস আলম গ্রুপের পরিচালক মোরশেদুল আলম
এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যান সাইফুল আলম মাসুদের বড় ভাই ও পরিচালক। এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের পরিচালক, এস আলম সুপার এডিবল অয়েল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চেমন ইস্পাত লিমিটেডের চেয়ারম্যান।

ফারইস্ট ইউনিভার্সিটির ভিসি ড. নাজমুল করিম
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ও ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য। ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা।

সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী আনোয়ারুল কবির
বিএনপি জোট সরকারের আমলের সাবেক বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী। বিএনপির সাবেক মহাসচিব ব্যারিস্টার আবদুস সালাম তালুকদারের ভাতিজা।

দুদক পরিচালক জালাল সাইফুর রহমান
দুর্নীতি দমন কমিশনের পরিচালক (প্রশাসন)। বিসিএস ২২তম ব্যাচের প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা।

অতিরিক্ত সচিব তৌফিকুল আলম
সদ্য অবসরোত্তর ছুটিতে (পিআরএল) যাওয়া। সর্বশেষ তথ্য কমিশনের সচিব। বিসিএস অষ্টম ব্যাচের (১৯৮৬) কর্মকর্তা।

হেমাটোলজিস্ট অধ্যাপক মনিরুজ্জামান
দেশের অন্যতম হেমাটোলজিস্ট এবং ল্যাবরেটরি মেডিসিন স্পেশালিষ্ট অধ্যাপক কর্নেল (অব.) মো. মনিরুজ্জামান। আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের চিফ হেমোটোলজিস্ট।

আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ মফচ্ছিল আলী
মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও মৌলভীবাজার মিনিবাস মালিক সমিতির চেয়ারম্যান, সমাজসেবী ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী।

সাংবাদিক সুমন মাহমুদ
প্রবীণ সাংবাদিক ও দৈনিক ভোরের কাগজের সাবেক সহকারী সম্পাদক। এনটিভির সাবেক বার্তা সম্পাদক।

ইবনে সিনার রেডিওলজি বিভাগ প্রধান মোকারিম
অধ্যাপক মেজর (অব.) আবুল মোকারিম মো. মহসিন উদ্দিন ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের প্রধান ছিলেন।

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডা. মঈন
সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন। করোনায় প্রথম মৃত্যুবরণকারী চিকিৎসক। সিলেটে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ টিমের সদস্য।

সাংবাদিক হুমায়ুন কবীর খোকন
দৈনিক সময়ের আলোর নগর সম্পাদক এবং ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সিনিয়র সদস্য। ঢাকাস্থ কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি। দৈনিক মানবজমিন, আমাদের সময়সহ কয়েকটি পত্রিকার সাবেক সাংবাদকর্মী।

নৃত্যশিল্পী হাসান ইমাম
টেলিভিশন নৃত্যশিল্পী সংস্থার সাবেক সভাপতি, দেশের বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী এবং নৃত্য পরিচালক।

এশিয়ান কারাতে ফেডারেশনের রেফারি জুয়েল
এশিয়ান কারাতে ফেডারেশনের রেফারি, বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশনের সদস্য হুমায়ুন কবীর জুয়েল। তিনি সাবেক ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন, জাতীয় কারাতে দলের সাবেক এবং বর্তমানে বাংলাদেশ আনসার কারাতে দলের কোচ ছিলেন।

শিক্ষাবিদ নজবুল হক
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা পরিষদের সাবেক (প্রথম) চেয়ারম্যান ও গাবতলীর সৈয়দ আহম্মদ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ। তার বাবা যুক্তফ্রন্টের এমএলএ ছিলেন। তিনি গাবতলীর সুখানপুকুর এলাকায় সৈয়দ আহম্মদ কলেজ স্টেশন, বাজার ,স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেছেন।

এছাড়া করোনায় আক্রান্ত বিশিষ্টজনদের মধ্যে রয়েছেন-

*গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি, বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

*এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ও হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ।

*সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও অ্যাপেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান সৈয়দ মঞ্জুর এলাহী।

*এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যান সাইফুল আলমের পরিবারের কয়েকজন সদস্য।

*শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের ছোট ভাই ও চট্টগ্রামের প্রয়াত সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে বোরহানুল হাসান চৌধুরী সালেহীন।

*ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের হৃদরোগ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরী প্রমুখ।

তাছাড়া সশস্ত্র বাহিনীর সাবেক বর্তমান ১০০০ এর বেশী সদস্য এবং ৪০০০ এর বেশী পুলিশ সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে স্ব স্ব কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। আরও মাসখানেক আগেই ৫০০ চিকিৎসক এবং ৫০ এর বেশি সাংবাদিক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!