মাটি খুঁড়ে লাশ উদ্ধার

অপহৃত যুবককে হত্যার পর মাটিতে পুঁতে ফেলল রোহিঙ্গা ডাকাতরা

অপহৃত যুবককে হত্যার পর মাটিতে পুঁতে ফেলল রোহিঙ্গা ডাকাতরা

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের মিনাবাজার এলাকা অপহৃত যুবক শাহ মোহাম্মদ শাহেদকে (২৬) গুলি করে হত্যার পর লাশ মাটিতে পুঁতে ফেলেছে রোহিঙ্গা ডাকাতরা। রোহিঙ্গা ডাকাত দলের ঢেরা থেকে পালিয়ে আসা আরেক যুবকের মাধ্যমে খবর পেয়ে টেকনাফ থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

রোববার (২৪ মে) সন্ধ্যায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ।

অপহরণের পর হত্যার শিকার ওই যুবক টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ঝিমংখালী এলাকার মোহাম্মদ হোসাইনের ছেলে। তিনি পেশায় একজন কৃষক।

নিহত শাহ মোহাম্মদের ভাই মো. সাইফুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে জানান, ২৮ দিন আগে ক্ষেত থেকে তার ভাইসহ তিনজনকে অপহরণ করেছিল রোহিঙ্গা ডাকাতরা। তারপর থেকে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে আসছিল। কিছুদিন পর একজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। বাকি ছিল তার ভাইসহ দুইজন। তাদের মধ্যে ইদ্রিস নামে একজন ফিরে এলেও তার ভাইকে গুলি করে হত্যা করেছে বলে ইদ্রিস তাদের জানিয়েছেন।

টেকনাফ থানা পুলিশ জানায়, হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও উপ-পরিদর্শক মো. মশিউরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রোহিঙ্গা ডাকাতদের পুতে রাখার স্থানের মাটি কুড়ে শাহেদের লাশ উদ্ধার করে।

সুত্র মতে, রোববার (২৪ মে) সকালে মৃত কাশেমের ছেলে মো. ইদ্রিস ডাকাতদের হাত থেকে পালিয়ে আসেন। ইদ্রিস জানান, মোহাম্মদ শাহেদকে রোহিঙ্গা ডাকাতরা গত ২০ মে হত্যা করে মাটি চাপা দিয়ে দেয়।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ এপ্রিল রাত ৮টার দিকে ৩ যুবককে ধরে নিয়ে রোহিঙ্গা ডাকাতরা। তাদের মধ্যে মাওলানা আবুল কাশেমের ছেলে আকতার উল্লাহকে (২৪) গুলি করে হত্যা করা হয়। সর্বশেষ শাহ মোহাম্মদ শাহেদকেও গুলি করে হত্যা করে মাটিতে লাশ পুঁতে ফেলে রোহিঙ্গা ডাকাতরা।

মৃত কাশেমের ছেলে মো: ইদ্রিস ডাকাতের হাত থেকে ২৪ মে সকালে পালিয়ে অাসেন।ইদ্রিস বলে মোহাম্মদ সাহেদকে রোহিঙ্গা ডাকাতরা গত ২০ মে হত্যা করে মাঠি চাপা দিয়ে দেয় বলে জানান।তার খবর অনুযায়ী বিকাল ৬ টার সময় লাশ মাঠি চাপা থেকে উদ্ধার করা হয়।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!