করোনা প্রতিরোধে মাঠের মানুষ রামুর ইউএনও প্রণয় চাকমা

রামুই আমার সংসার!

মুহাম্মদ আবু বকর ছিদ্দিক, রামু
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

রামুতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা করোনা প্রতিরোধে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। রামুকে করোনামুক্ত রাখতে প্রতিনিয়ত মাঠে রয়েছেন তিনি। ইউএনও প্রণয় চাকমা রামুকে করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে আজ ১৮ মে থেকে সব ধরণের দোকান ও শপিংমল বন্ধ ঘোষণা করেছেন। শুধুমাত্র সীমিত আকারে বিকাল ৪টা পর্যন্ত খোলা রাখার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সুত্র গুলো জানান, বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস (কোভিট-১৯) বিশ্ববাসি আক্রান্ত ও মৃত্যুর কবলে পড়ার ধারাবাহিকতায় গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর থেকে বাংলাদেশে নতুন আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। ১৭ মার্চ ছিলো মুজিব শতবর্ষ উদযাপন।কিন্তু করোনা আতঙ্কে ওই আয়োজনও সীমিত করা হয়। ফলশ্রুতিতে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমার বিচক্ষণতায় করোনা প্রতিরোধে রামুতে সর্বপ্রথম ১৬ মার্চ করোনার ‘রেড এলার্ট’ জারি করে মাইকিং করা হয়।

এরপর থেকে সীমিত আকারে দোকানপাট খোলা-বন্ধ থাকলেও দুরত্ব বজায় রেখে চলাফেরার বিভিন্ন বিধিনিষেধ প্রচারণা চালিয়ে যায় রামু উপজেলা প্রশাসন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে কক্সবাজার জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন। রামুর জনসাধারণকে করোনা মুক্ত রাখতে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা রামুর ১১টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার গ্রামগঞ্জসহ দুর্গম এলাকা ব‍্যাঙডেবায় ওষুধ ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। নিয়মিত পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমান আদালত। তিনি নিজে গাড়ি চালিয়ে পুরো উপজেলায় করোনাভাইরাস সংক্রমরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে অভিযানও চালান।

বৌদ্ধ পূর্ণিমায় রামুর ইউএনও প্রণয় চাকমার শুভেচ্ছা

একদিকে ত্রাণ বিতরণ আর অন্যদিকে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন ইউএনও প্রণয় চাকমা। তিনি এক পর্যায়ে ‘রামু ইউএনও’ ফেসবুক আইডিতে হৃদয়বিদারক স্ট‍্যাটাসের মাধ্যমে জানান, উনার শিশুকন‍্যাসহ সহধর্মিনী অসুস্থ থাকা সত্ত্বেও করোনা প্রতিরোধে অভিযান চলমান রাখেন। তিনি বলেন, রামুই আমার পরিবার, রামুই আমার সংসার। এতো কষ্ট করার পরও কিছুতেই রামুর মানুষ বুঝছে না করোনাভাইরাস। এরপরও আমি সকলকে অনুরোধ জানাই, আপনারা যার যার অবস্থান থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সচেতন ও সতর্ক থাকবেন।

এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্রণয় চাকমা বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সাধারণ মানুষের আরো বেশি সচেতন হওয়া জরুরি। এই কঠিন সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেশ এবং সরকারের নির্দেশনাগুলো মেনে চলা বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে আমার, আপনার, সবার দায়িত্ব।

তিনি বলেন, করোনা সচেতনতায় যেমন কাজ করে যাচ্ছি, তেমনি কর্মহীন হতদরিদ্র মানুষকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী ও অর্থ সহায়তা দিয়ে যাচ্ছি এবং সরকারের নির্দেশনা না আসা পযর্ন্ত আমার অভিযান চলবে।

সরকারের নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী ১৮ মে বিকাল ৪টা থেকে সব মার্কেট, শপিংমল, দোকানপাট পূনরায় নির্দেশনা না দেয়া পযর্ন্ত বন্ধ রাখার জন্য সকলকে অনুরোধ করেছেন ইউএনও প্রণয় চাকমা।

তিনি হুঁশিয়ারি দেন, অন্যথায় রামু উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!