খুরুস্কুলে গলাকেটে কায়সার হত্যায় ৪ জন গ্রেপ্তার, দুইজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

খুরুস্কুলে গলাকেটে কায়সার হত্যায় ৪ জন গ্রেপ্তার, দুইজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

আনছার হোসেন
সম্পাদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার শহরতলির খুরুস্কুল ইউনিয়নের পূর্ব হামজার ডেইল এলাকায় কায়সার (২৪) নামের এক যুবককে জবাই করে হত্যার ঘটনায় জড়িত ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে কক্সবাজার সদর থানা পুলিশ। ওই সময় দুইটি অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র, ২ রাউন্ড তাজা কার্তূজ, রাম দা ও কিরিচ উদ্ধার করা হয়।

ধৃত চারজন হলেন পিএমখালী ইউনিয়নের ৩ নাম্বার ওয়ার্ডের তোতকখালী এলাকার সিকদার পাড়ার পইল্লাকাটা এলাকার আলী আকবরের ছেলে মোঃ ফারুক (২২), একই এলাকার আবুল কালামের ছেলে মুজিবুল করিম (২২) ও লাল মোহাম্মদের ছেলে শাহজাহান (২৭) ও একই ইউনিয়নের ছনখোলা মধ্যম মাদলিয়া পাড়ার বার্মাইয়া আবদুস সালামের ছেলে আবদুল করিম (২৫)।

তাদের কাছ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছোরাও উদ্ধার করা হয়।

ধৃত চারজনের মধ্যে দুইজন স্বেচ্ছায় আদালতে অপরাধ স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তাদের দাবি, হত্যাকান্ডের শিকার কায়সারের চাচাতো মামা মোহাম্মদ বেদারুলের পরিকল্পনায় ওই হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত ১১ মে সকালে পুলিশ খুরুস্কুল ইউনিয়নের পূর্ব হামজার ডেইল গোলক সওদাগরের ঘোনা এলাকার আবদুস সালামের ধাতক্ষেত থেকে আবু তৈয়বের ছেলে কায়সারের গলাকাটা লাশটি উদ্ধার করেছিল।

পুলিশের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনের নির্দেশনা, কক্সবাজার সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের তত্ত্বাবধান ও কক্সবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজাহান কবিরের নেতৃত্বে পুলিশের বিশেষ একটি দল রোববার (১৭ মে) মধ্যরাত ১টার দিকে পিএমখালী ইউনিয়নের ৩ নাম্বার ওয়ার্ডের পইল্লাকাটা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ওই চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এই অভিযানে অংশ নেন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ খায়রুজ্জামান, উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনছারুল হক, এসআই দেলোয়ার হোসাইন, এসআই তীথংকর দাস, এসআই তৈমুর ইসলাম, পিএসআই মোঃ সাখাওয়াত, পিএসআই ইখতিয়ার আহমদ, এএসআ বাবলু দে, এএসআই রাশেদ খাঁন, এএসআই মাসুম হোসেন, এএসআই বাবুল মিয়া, কনস্টেবল রাজু আহমদ, মেহেদী হাসান, আসাদুজ্জামান প্রমূখ।

প্রসঙ্গত, মোঃ কায়সারের গলাকাটা লাশ উদ্ধারের পর তার বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাত হত্যাকারিদের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলার তদন্তভার পান উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনছারুল হক।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!