একদিনেই শনাক্ত ৯ করোনা রোগী, নতুন ‘হটস্পট’ কক্সবাজার শহর!

মহিউদ্দিন মাহী
প্রধান প্রতিবেদক, কক্সবাজার ভিশন ডটকম

মরণব্যাধি করোনাভাইরাসের ‘হটস্পট’ তালিকা থেকে এবার বাদ গেলো না পর্যটন শহর কক্সবাজারও। জেলার চকরিয়া উপজেলার পর নতুন করে কক্সবাজার শহরেই আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলছে। রোববার (১৭ মে) একদিনেই কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে করোনা শনাক্ত হয়েছে পৌর এলাকাতে ৯ জন ব্যক্তি। পৌর এলাকার সবচেয়ে বেশি সংখ্যাক করোনা রোগি ধরা পড়েছে টেকপাড়া এলাকাতেই। দ্বিতীয়তে বৈদ্যঘোনা এলাকায়। রোববারও একই ভাবে এই টেকপাড়াতেই নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৪ জন, বৈদ্যঘোনাতে ৩ জন, তারাবনিয়ারছড়া এলাকাতে ১ জন, বিজিবি ক্যাম্প এলাকার ১ জন তাদের মধ্যে সোনালি ব্যাংকের একজন সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম)ও রয়েছেন।   করোনার এই সময় পর্যন্ত টানা ৪৬ দিনে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে হওয়া পরীক্ষার মধ্যে সদরের ৫০ জন করোনা রোগি শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৪৪ জনই কক্সবাজার পৌর এলাকার  টেকপাড়া, কালুর দোকান, বৈদ্যরঘোনা, তারাবনিয়ারছড়া, রুমালিয়ার ছড়া, বিজিবি ক্যাম্প এলাকার।

বাকি ৬ জন শহরতলীর খুরুশকুল, বাংলাবাজার, ভারুয়াখালী এলাকাতে। পৌর এলাকার সবচেয়ে ঝুকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে টেকপাড়া।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজারের একমাত্র সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহজাহান নাজির।
তিনি জানান, এই পৌর এলাকাতেই ঘনবসিতে, মসজিদ ও কাঁচা বাজার বেশি রয়েছে। সংক্রমণ রোগের ক্ষেত্রে ঘনবসতি অনেকটা ঝুকি। এই পর্যন্ত পৌরসভার কয়েকটি ওয়ার্ডেই করোনা রোগির সংখ্যা দেখা যাচ্ছে।
তিনি জানান, ইতিমধ্যে দেশের মহামারি হয়ে পড়া নারায়ণগঞ্জসহ কয়েকটি এলাকাতে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে নমুনা নেয়ার জন্য কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন স্থানীয় কাউন্সিলর ও সচেতন ব্যক্তিরা। এখানেও একই ভাবে কাজ করতে হবে। তাহলেই ঝুকি কমবে। এই সময়ে যদি উপসর্গ দেখা মিলে দ্রুতই টেষ্ট করতে হবে। টেষ্টে যদি ‘পজিটিভ’ আসে তাহলে ওই রোগিকে আলাদা করে উপযোগ্য হোম আইসোলেশন নয়তো বা ডেডিকেটঢ হাসপাতালে নিতে হবে।
কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ক্লিনিক্যাল ট্রপিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মনে করেন, করোনার এই কঠিন সময়ে প্রতি এলাকায় এলাকায় নজর বাড়াতে হবে। না হলে আরও ভয়াবহ দেখা দিবে পর্যটন নগরী কক্সবাজারেই।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!