করোনা দূর্যোগে নাইক্ষ্যংছড়ির সাংবাদিকদের পাশে বান্দরবান জেলা পরিষদ

মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষ্যংছড়ি
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

অবশেষে নাইক্ষ্যংছড়ির সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়ালেন বান্দরবান জেলা পরিষদ ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদ।

শনিবার (১৬ মে) সন্ধ্যায় উপজেলা চেয়ারম্যানের র্কাযালয়ে উপজেলা প্রেস ক্লাবের সকল সাংবাদিককে ঈদ উপহার ও করোনা সামগ্রী তুলে দেন এই দু’প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক শফিউল্লাহ ও জেলা পরিষদ সদস্য ক্যনু ওয়ান চাক।

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুল হামিদ জানান, করোনা সংকটে সীমান্ত উপজেলা নাইক্ষ্যংছড়ির ১৭ সাংবাদিক নানা সমস্যায় ছিলেন। এ নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন লিখেন ক্লাবের কর্ণধার ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাঈনুদ্দিন খালেদ। এছাড়া এ উপজেলা এক-তো পাহাড়ি জনপদ, অপরদিকে মিয়ানমার সীমান্ত। আর সারাদেশের মতো এই উপজেলা করোনা লকডাউনের আওতায় স্থিতিমান থাকায় সাংবাদিকরা পড়ে যান বেকায়দায়। এ অবস্থায় নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সার্বক্ষণিক সাহস দিয়ে আসছিল এই সাংবাদিকদের। সর্বশেষ ঈদকে সামনে রেখে বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা মারমা দাঁড়ালেন এসব সাাংবাদিকদের পাশে। এতে সবাই এই দু’প্রতিষ্ঠানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান আন্তররিকভাবে।

প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক মাঈনুদ্দিন খালেদ বলেন, জীবনবাজি রেখে সাংবাদিকরা মাঠে আছেন। কাজ করছেন। অন্যরা বাসা-বাড়িতে থাকলেও সাংবাদিকরা জীবন ঝুঁকিতে মাঠে আছেন। এরই মাঝে অপবাদের বোঝাও থাকে, তাদের মাথার উপর। বন্ধু পাওয়া দুষ্কর হয়ে পড়ে তখন।

তিনি বলেন, এ দুঃসময়ে প্রকৃত সাংবাদিকদের বন্ধু নেই- এ প্রবাদটি অনেকাংশে ব্যতিক্রম প্রমাণ করেছেন নাইক্ষ্যংছড়ির বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান। তিনি করোনা দূর্যোগে সাংবাদিকদের খোঁজখবর রেখেছেন সাহস জুগিয়েছেন অভিভাবকসূলভ। এভাবে তিনি এই উপজেলার সাংবাদিকদের পাশে আছেন বিগত ২৫ বছর ধরে। সেই ২৫ বছর আগেই ক্লাবের জন্য মূল্যবান জমিও দান করে তিনি। পাশাপাশি পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিংও প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এ ক্লাবের প্রতি সুদৃষ্টি দিয়ে আসছিলেন। আর বর্তমানে তারই (মন্ত্রী বীর বাহাদুর) সহায়তায় বান্দরবান জেলা পরিষদ প্রায় ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে ক্লাবের জন্যে ভবন নির্মাণ করে দেন।

তিনি বলেন, এরই মাঝে করোনার এ কঠিন বিপদ মুহুর্তে সাংবাদিকদের লিখনিতে বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রদেয় সাংবাদিক প্রণোদনা-ঈদ উপহার গ্রহণ করেন তারই (উপজেলা চেয়ারম্যান) হাত ধরে।

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। তাদের লিখনিতে দেশ এতো এগিয়ে। বিশেষ করে কোভিট-১৯ করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতেও তারা জীবনবাজি রেখে কাজ করছেন। তাদের অবদান ভুলবার নয়।

তিনি বলেন, মানুষ ভাবে নিজের লাভের কথা আর তিনি আত্মঘাতি কাজ করেন। ক্ষতি হবে ভেবেও সাংবাদিকদের এ কাতারে নিয়ে এনেছেন। সব করে যাচ্ছেন। আরো করবেন। লাভ-ক্ষতি দেখেন না তিনি।

এক পর্যায়ে তিনি বলেন, অসুন্দর নয়, সুন্দরের দিকে এগিয়ে আসলে দেশের মঙ্গল হয়। আর সকলের মতামতকে প্রধান্য দিয়ে এই ক্লাব এগিয়ে যাক এই তার কামনা।

তিনি বিভেদ নয়, ঐক্য চান সব সময়। আর যারা বিভেদ সৃষ্টি করে তারা টিকে থাকে না।

তিনি সকলকে দেশের কল্যাণে কাজ করতে উদাত্ত আহবান জানান। এছাড়া দেশরত্ম মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জেলার মন্ত্রী বীর বাহাদুর ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কৈশহ্লা’র প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

এ সময় ক্লাবের সদস্য মুফিজুর রহমান ও একমাত্র নারী সদস্য সানজিদা আক্তার রুনাসহ কয়েকজন সদস্য বলেন, ক্লাবের কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে প্রায় দেড়বছর আগে। ২ বছরের কমিটি এখন চলছে ৩ বছর ৬ মাস।

অতিসত্ত্বর নতুন কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন তারা। সাথে সাথে উপস্থিত ১৬ সাংবাদিক সকলে এ প্রস্তাব সর্মথন করেন। তারা আগের মতো দ্রুত নতুন কমিটি গঠনের ব্যবস্থা নিতে ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহর প্রতি আহবান জানান।

এ সময় অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা প্রকৌশলী তফাজ্জল হোসেন, সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল আবছার, সহকারী প্রকৌশলী রেজাউল করিম, প্রভাষক আক্তার কামাল, সিনিয়র সাংবাদিক ইফসান খান ইমন, আমিনূল ইসলাম, আবুল বশর নয়ন, জাহাঙ্গির আলম কাজল, জয়নাল আবেদীন টুক্কু, আবদুর রশিদ, হাফিজুল ইসলাম, মাহমুদুল হক বাহাদুর, মোহাম্মদ তৈয়ব উল্লাহ, মোহাম্মদ ইউনুছ ও এম আবু শাহমা।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!