‘জেলা প্রশাসন রামুবাসীর পেটে লাথি দিয়েছে’, বললেন এমপি কমল

‘জেলা প্রশাসন রামুবাসীর পেটে লাথি দিয়েছে’, বললেন এমপি কমল

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল দাবি করছেন, ‘জেলা প্রশাসনের বরাদ্দে রামুবাসীর পেটে লাথি দেয়া হয়েছে।’

‘ত্রাণ বরাদ্দে অনিয়মের কারণে জেলা প্রশাসককে করোনার আগেই কক্সবাজার থেকে বিদায় নিতে হবে’, এমন মন্তব্যও করেছেন তিনি।

সাংসদ কমল সোমবার (১১ মে) রামু উপজেলার গর্জনিয়ায় ১০০০ পরিবারে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্টানে এমন কথা বলেন। গর্জনিয়ার আলহাজ্ব মোজাহের আহমেদ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ওই ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছিল।

রামু থেকে সাংবাদিক শোয়েব সাঈদ পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমন বক্তব্য ও তথ্য পাওয়া গেছে।

ওই অনুষ্টানে এমপি কমল বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতি দিনদিন ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। দেশে দেশে মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। বাংলাদেশেও এই মহামারী ভয়াল রূপ নিতে শুরু করেছে।’

এমন দুঃসময়ে আমাদের সবাইকে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষায় সচেতন হতে হবে। সবাইকে ঘরে থাকতে হবে। বিনা প্রয়োজনে কেউ যেন বাড়ি থেকে বের না হই।’ এমন কথাও বলেন তিনি।

এমপি সাইমুম সরওয়ার কমল বলেন, ‘আসন্ন ঈদেও কেনাকাটা থেকে দূরে থেকে মানুষকে নিরাপদ রাখার চেষ্টা করতে হবে।’

সোমবার (১১ মে) দুপুরে গর্জনিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা ও বিকালে গর্জনিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ওই অনুষ্ঠানে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক বক্তব্য দেন গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, গর্জনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরিদ আহমদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব সিকদার, গর্জনিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আরিফ ও আলহাজ্ব মোজাহের আহমেদ ফাউন্ডেশনের পক্ষে জেরিন সিকদার।

এসময় রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নীতিশ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল হক, সাংবাদিক সোয়েব সাঈদ, রামু উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সম্পাদক আবু বক্কর ছিদ্দিক, রামু উপজেলা বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের সভাপতি একরামুল হাছান ইয়াছিন উপস্থিত ছিলেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!