রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ নিরাপত্তা পরিষদে তুলবে তুরস্ক

সব রোহিঙ্গা ক্যাম্প ‘লকডাউন’

বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে থাকা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রত্যাবাসন তরান্বিত করতে বিষয়টি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের পরবর্তী বৈঠকে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেবলুৎ সাবুসোলু।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শনিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ফোনালাপে ওই প্রতিশ্রুতি দেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশকে সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে তুরস্ক।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী বছর ডি-৮ সম্মেলনের আগে বর্তমান সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে সম্মেলনের প্রস্তুতির জন্য মহাপরিচালক পর্যায়ে ভার্চুয়াল বৈঠকের আয়োজন করতে মেবলুৎ সাবুসোলুকে অনুরোধ করেন এ কে আব্দুল মোমেন।

সেইসঙ্গে করোনাভাইরাস পরবর্তী পরিস্থিতিতে অথনৈতিক সহযোগিতা জোরদার করার জন্য ডি-৮ এর একটি ওয়ার্কিং গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করতেও জোটের বর্তমান সভাপতি দেশ তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ জানান তিনি।

এসব বিষয়ে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রস্তাবে সম্মতি প্রকাশ করেছেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

স্বল্পোন্নত দেশগুলোর জন্য জি-২০ এর বরাদ্দ করা ৭ ট্রিলিয়ন ডলার থেকে বাংলাদেশ যেন সহযোগিতা পায় সে বিষয়ে তুরেস্কের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন।

তিনি ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাম্প্রতিক বৈঠকে তোলা ’কোভিড-১৯ জরুরি তহবিল’ গঠনের প্রস্তাবের বিষয়েও কার্যকর পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ করেন তুরস্কের মন্ত্রীকে।

করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের পোশাক খাতকে সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে জানিয়ে মোমেন বলেন, “বিভিন্ন দেশের ক্রেতারা যাতে বাংলাদেশের পোশাক ক্রয়ের আদেশ বাতিল না করেন- সে বিষয়ে তুরস্কের সহযোগিতা কামনা করছি।”

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফোনালাপে বাংলাদেশকে ১ লাখ এন-৯৫ ও সার্জিক্যাল মাস্ক দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!