রামুতে ‘বিএনপি অফিসে’ ডিসি’র বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদ সম্মেলন, নিন্দা করল উপজেলা আ.লীগ

আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে আছেন যারা

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

রামুতে ‘বিএনপি অফিসে’ বসে উপজেলা আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম মন্ডল। তিনি ও উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতারা এক বিবৃতিতে ওই ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

শামসুল আলম মন্ডল স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করা হয়েছে, রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে গত ৫ মে জেলা প্রশাসনের চাল বরাদ্দে ‘বিমাতাসুলভ আচরণ’ সম্পর্কিত একটি সংবাদ তাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। ওই সাংবাদিক সম্মেলনের সাথে রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের কোন সম্পৃক্ততা নেই।

তাদের দাবি, রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ কোন সংবাদ সম্মেলন করেনি। মূলত বিএনপির কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের ব্যানারে ‘কথিত’ এই সংবাদিক সম্মেলন ব্যক্তিগত উদ্দেশ্য হাসিলের অপচেষ্টা।

আওয়ামী সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম বলেন, রামু উপজেলা আওয়ামী লীগ অত্যন্ত সুসংগঠিত একটি সংগঠন। যেটি পরিচালিত হয় কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে। আমাদের দলীয় সকল কর্মসূচি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ এবং জেলা আওয়ামী লীগের নির্দেশে পরিচালিত। রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে যে সাংবাদিক সম্মেলন তা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তিকে ক্ষূন্ন করেছে।

তিনি ও তাদের দলের নেতারা মনে করেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক এবং রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিরুদ্ধে শিষ্টাচার বিরোধী যে আচরণ মূলতঃ সেটি নিজস্ব তাবেদারী প্রশাসন তৈরির প্রচেষ্টা।

রামুতে ‘বিএনপি অফিসে’ আ.লীগের ব্যানারে ডিসি’র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন, নিন্দা করল উপজেলা আ.লীগ

বিবৃতিতে বলা হয়, রামু উপজেলা পরিষদের বরাদ্দ নিয়ে যদি গরমিল হয়ে থাকে, তাহলে আলোচনার ভিত্তিতে সেটি খুব সহজ ভাবে সমাধান করা যায়। দেশের সাধারণ মানুষের কান ভারি করে বরাদ্দের কথা বলে সাংবাদিক সম্মেলন কিংবা বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচি মূলতঃ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলেন, জেলা প্রশাসক একজন সম্মানিত ব্যক্তি। জেলার প্রশাসনের কর্ণধার। সরকার এবং রাষ্ট্রের প্রতিনিধি। জেলা প্রশাসকের শাস্তি দাবি করে হেয়প্রতিপন্ন করা মানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রশাসনের বিরুদ্ধাচারণের সামিল। মূলতঃ কোভিট-১৯ (করোনা ভাইরাস) নিয়ে সারাদেশ যখন আক্রান্তের হুমকিতে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন ব্যতিব্যস্ত, সেখানে চাল বরাদ্দের নাম দিয়ে কথিত সাংবাদিক সম্মেলন সরকারকে বিপাকে ফেলার একটি ষড়যন্ত্র।

তারা দবি করেন, যারা ‘কথিত’ সংবাদ সম্মেলন করেছেন তারা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ রামু উপজেলার কোন সদস্য বা কর্মী নয়। এ ধরণের একটি কুচক্রী মহল রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে বিতর্কিত কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

তারা বলেন, আমরা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ রামু উপজেলার পক্ষ থেকে এই ধরণের কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

প্রসঙ্গত, গত ৫ মে রামুতে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের কয়েকজন নেতা-কর্মী জেলা প্রশাসকের বিরুদ্ধে ত্রাণের চাল বরাদ্দে ‘বিমাতাসুলভ আচরণে’র অভিযোগ তুলে একটি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছিল। যদিও ওই সংবাদ সম্মেলনে রামু উপজেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক কিংবা কমিটির উল্লেখযোগ্য কোন নেতা উপস্থিত ছিলেন না।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!