আলীকদম ইউএনওকে ফাঁসানোর ঘটনা অনুসন্ধানে গিয়ে হুমকির মুখে ৫ সাংবাদিক

আলীকদম ইউএনওকে ফাসাঁনোর ঘটনা অনুসন্ধানে গিয়ে হুমকির মুখে ৫ সাংবাদিক

মো. আবুল বাশার নয়ন, বান্দরবান
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

বান্দরবানের আলীকদমে মিনহাজ উদ্দিন রোকন নামের এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্থানীয় ৫ সাংবাদিককে পেটানোর হুমকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই সংক্রান্ত একটি অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বর আলীকদম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সায়েদ ইকবাল মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে লামা উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিক কামরুজ্জামানের ১১০০ ঘনফুট অবৈধ পাথর জব্দ করেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ফেরদৌস রহমানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, অবৈধ পাথরবিরোধী অভিযান পরিচালনাকালে তিনি ইউএনওর সাথে ছিলেন। ওই অভিযান পরিচালনাকালে ইউএনও কর্তৃক কোন সর্দার বা অন্য কোন ব্যক্তিকে মারধরের ঘটনা ঘটেনি।

অভিযান চলাকালে সর্দারের মোবাইলে রোকন মাস্টার ফোন করলে ইউএনও কলটি রিসিভ করেন। এ সময় অপরদিক থেকে রোকন মাস্টার ইউএনও স্যারের গাড়ি ভেতরে যেতে না পারে মতো পথ আটকানোর কথা বলায় স্যার সর্দারকে ধমক দিয়েছিলেন।

এদিকে দৈনিক ভোরের কাগজের আলীকদম প্রতিনিধি হাসান মাহমুদ বলেন, শিক্ষক মিনহাজ উদ্দিন রোকন একজন পাথর ব্যবসায়ী এবং পাথর সিন্ডিকেটের অন্যতম সদস্য। যে কোন মুহুর্তে অনাকাঙ্খিত ঘটনার সূত্রপাত ঘটাতে পারে বলে আশঙ্কা করছি। সুতরাং অতি দ্রুত তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আমি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের বিনীত দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

অপরদিকে চ্যানেল আই বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি এসএম ইসমাইল হাসান বলেন, রোকন মাষ্টার ইতিপূর্বে চেক জালিয়াতি মামলায় পুলিশের হাতে আটক হয়ে জেলে গিয়ে চাকুরি থেকে সাসপেন্ড অবস্থায় আছেন।

তিনি বলেন, একজন সরকারী শিক্ষক হয়ে অবৈধ পাথর ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছেন, যা সম্পুর্ণ নিয়ম পরিপন্থী। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। সেই সাথে সংশ্লিষ্ঠ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, যেন দ্রুত এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। অন্যথায় সাংবাদিকরা আন্দোলন গড়ে তুলবে।

সাংবাদিকদের পেটানোর হুমকির অডিও শুনতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!