‘হটস্পট কম্বনিয়া’র মানুষের সহযোগিতা চাইলো প্রশাসন!

‘হটস্পট কম্বনিয়া’র মানুষের সহযোগিতা চাইলো প্রশাসন!

মো. আবুল বাশার নয়ন, বান্দরবান
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

বান্দরবানে বেশি করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায়। আর এই উপজেলায় সংক্রমণের সংখ্যা ৫ জন হলেও, একজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

বাকি চারজনকে হাসপাতালের আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা ও পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এই চারজনই উপজেলার কম্বনিয়া গ্রামের বাসিন্দা। যার কারণে গ্রামটিকে আপাতত ‘হটস্পট’ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

গত ২৭ মার্চ প্রথম রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ১৭টি বাড়িসহ লকডাউন করা হয়েছে গ্রামটি। তাদের ১৪ দিনের হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে বলেছে উপজেলা প্রশাসন। কিন্তু গত ২৮ মার্চ ওই গ্রামে দ্বিতীয় দফায় আরো ৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর তাদের আইসোলেশনে আনা নিয়ে তুলকালাম কান্ড ঘটে।

আক্রান্তের পরিবারের পক্ষ থেকে স্থানীয় স্বাস্থ্যকর্মী ও ইউপি সদস্যকে হুমকি ধমকি দেয়ার অভিযোগ উঠে। সব মিলিয়ে নানামুখী ঘটনায় কম্বনিয়ায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছিল।

এই পরিস্থিতিতে সোমবার (৪ এপ্রিল) কম্বনিয়ায় স্থানীয় মুরব্বী ও সচেতন নাগরিকদের নিয়ে সামাজিক দূরত্ব মেনে আলোচনা করেছেন উপজেলা প্রশাসন। এসময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে গ্রামের মানুষকে করোনা সংকট মোকাবেলায় সরকারী নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানানো হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া আফরিন কচি, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কানন চৌধুরী, সদর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আবছার, ইউপি মেম্বার আলী হোসেন।

এই ব্যাপারে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আবছার ইমন জানান, আইসোলেশনে রোগী নেয়া ও হোম কোয়ারান্টিন মেনে চলার বিষয়কে একটি কুচক্রি মহল গ্রামের সহজ সরল মানুষদের ভুল বুঝিয়ে বিভ্রান্ত করেছে। আর তাই উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন এলাকার মুরব্বীদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এসময় সাধারণ মানুষও প্রশাসনকে সহায়তার আশ্বাস দেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!