ইরফান খানের অজানা যা কিছু

ইরফান খানের অজানা যা কিছু

যখন ইরফান খানের মৃত্যুতে শোকাতুর ভক্তকূল তখন অনেকেই জানতে চাইছেন তার সমন্ধে অজানা অনেক কিছুই। জানতে চাইছেন প্রিয় চরিত্রের আড়ালে থাকা তথ্য। ভক্তদের ভালবাসা এমনই। প্রিয় অভিনেতা চলে গেলেও তার প্রতি আগ্রহ ধরে রাখতে চায় অটুট।
ইরফান খানের এমনই কিছু অজানা তথ্য তুলে ধরা হলো পাঠকদের জন্য

ইরফান খানের আসল নাম সাহাবজাদে ইরফান আলি খান। জানা যায় ইরফান খান নাকি নিজের লম্বা নামটি শুনতে ভালোবাসতেন না। নামটি ছোট করে ইরফান লিখতে থাকেন। ২০১২-তে নামের মধ্যে তিনি একটি অতিরিক্ত ‘আর’ যোগ করেন। কারণ তাঁর এই শব্দটি শুনতে ভালো লাগত বলে জানা যায়।

ইরফান খান কিন্তু দুর্দান্ত ক্রিকেটার ছিলেন।

সি কে নাইডু টুনার্মেন্টে খেলার সুযোগ পান, কিন্তু খেলতে পারেননি টাকার অভাবে।

ইরফান এম এ পড়াকালীন সময়েই ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামায় পড়ার জন্য একটি স্কলারশিপ পান। বলা হয়, তিনি নাকি তাঁর থিয়েটারের অভিজ্ঞতা নিয়ে মিথ্যে বলেন ভর্তি হওয়ার সময়ে। ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামাতেই তিনি দেখা পান তাঁর ভবিষ্যতের স্ত্রী সুতপা শিকদারের।

মুম্বইতে তাঁর প্রথম চাকরি এসি মেকানিক হিসেবে। কেউ কেউ বলেন চাকরির প্রথম দিকে তিনি নাকি রাজেশ খান্নার বাড়িতে যান এসি মেরামত করতে।
-ইরফান তাঁর অভিনয়ের শুরু করেন টেলিভিশনে। ‘চাণক্য’, ‘ভারত এক খোঁজ’, ‘সারা জাহাঁ হামারা, ‘বনেগি আপনি বাত’, ‘চন্দ্রকান্তা’ এবং ‘স্টার বেস্ট সেলার্সে’র মতো ধারাবাহিকে তিনি অভিনয় করেন।

হলিউডের কোনও ছবির অফার বলিউডের অভিনেতারা ফিরিয়ে দেন না সহজেই । কিন্তু ক্রিস্টোফার নোলানের মতো পরিচালককে সোজা না করে দিয়েছিলেন ইরফান। তাঁর ‘ইন্টারস্টেলার’ ছবিটিতে একটি মাঝারি রোলও ইরফান ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। কারণ সে সময়ে তাঁর ‘লাঞ্চ বক্স’ এবং ‘ডি ডে’ ছবিতে অভিনয়ের কথা ছিল।

লস অ্যাঞ্জেলিস এয়ারপোর্টে তাঁকে দু’বার আটকানো হয়েছিল কারণ তাঁর নামের সঙ্গে একজন আতঙ্কবাদীর নামের মিল ছিল। তাকে দেখা হচ্ছে সন্দেহভাজন হিসেবে।

ইরফান উচ্চতায় খুব লম্বা ছিলেন। ৬ ফুট এক ইঞ্চি । বলিউডের লম্বা অভিনেতাদের সঙ্গে স্বচ্ছন্দে একই পংক্তিতে বসতে পারতেন তিনি, যার মধ্যে অমিতাভ বচ্চন পর্যন্ত আছেন।

গ্যাভিন ও’কনার পরিচালিত ‘দ্য ওয়ারিয়র’ ছবি তাঁকে আন্তর্জাতিক বাজারে বিখ্যাত করে তোলে।

স্ত্রী সুতপা শিকদার এক জায়গায় বলেছেন তাঁকে ১১ বার একটি চিত্রনাট্য লিখতে হয়েছিল ইরফানকে সন্তুষ্ট করতে। ইরফান তখন ‘বনেগি আপনি বাত’ ধারাবাহিকটির কয়েকটি পর্ব পরিচালনা করছিলেন। সুতপা সেই ধারাবাহিকের চিত্রনাট্যকার ছিলেন।

ইরফানের অভিনয়ে আপ্লুত হয়েছিলেন জুলিয়া রবার্টসের মতো অভিনেত্রীও। একটি অস্কার সম্মানের রাতে জুলিয়া তাঁকে আলাদা করে ডেকে মীরা নায়ারের ‘নেমসেকে’ তাঁর অভিনয়ের সুখ্যাতি করেছিলেন। যে মীরা ‘সালাম বম্বে’তে তাঁকে শুটিং করিয়ে চরিত্রটি কাটছাঁট করেছিলেন।

ইরফানের একটা অদ্ভুত স্বপ্ন ছিল। মাকে স্যুটকেস ভর্তি টাকা দেবেন তিনি, ঠিক যেমন হিন্দি সিনেমায় দেখা যায়।

ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামায় পড়াকালীন, তাঁর শেষ বছরে মীরা নায়ার ইরফানকে ‘সালাম বম্বে’তে অভিনয়ের জন্য নির্বাচিত করেন। কিন্তু তাঁর চরিত্রটিকে শেষ পর্যন্ত কাটছাঁট করতে হয় তাঁর উচ্চতার জন্য।

ইরফান একমাত্র বলিউডি অভিনেতা যিনি দুটো অস্কার পুরস্কার জেতা ছবির অংশ। ২০০৮-এ ‘স্লামডগ মিলিওনেয়ার’ এবং ২০১২-তে ‘লাইফ অফ পাই’।

২০১১ সালে ভারতীয় সিনেমায় তাঁর অবদানের জন্য পদ্মশ্রী পান ইরফান।

এ সময় অবলম্বনে

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!