ঢাকায় চিকিৎসা শুরু কক্সবাজারের প্রথম করোনা রোগীর

ঢাকায় চিকিৎসা শুরু কক্সবাজারের প্রথম করোনা রোগীর

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের প্রথম করোনা রোগী মুসলিমা খাতুনের চিকিৎসা ঢাকার কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে শুরু হয়েছে। কক্সবাজার সদর হাসপাতাল থেকে ওই রোগী নিয়ে শনিবার বিকেলে যাত্রার পর তারা রাত পৌণে ১২টার দিকে ওই হাসপাতালে পৌঁছেন। মুসলিমা খাতুনকে ঢাকার উত্তরা ৬ নাম্বার সেক্টরের হাসপাতালটির করোনা আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

মায়ের সাথে ঢাকায় যাওয়া সাফিয়া খাতুন সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শনিবার বিকেল ৪টার পর বিশেষ অ্যাম্বুলেন্সে মা মুসলিমা খাতুনকে নিয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিলেন।

তার মতে, সৌদি থেকে ওমরাহ পালন করে দেশে ফেরা মুসলিমা খাতুন জ্বর, কাঁশি, সর্দি, গলাব্যথা ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তির পর টানা ৮ দিন চিকিৎসার পর স্বাস্থ্যের অবস্থার উন্নতি হয়নি। বরং ২৭ মার্চ রাত থেকে তার অবস্থার আরও অবনতি হতে শুরু করে। প্রচন্ড জ্বরের পাশাপাশি শুরু হয় পাতলা পায়খানা। তখন সদর হাসপাতালের চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে রেফার করেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৬ ফেব্রুয়ারী সৌদি আরবে পবিত্র ওমরাহ পালনে গিয়েছিলেন মুসলিমা খাতুন। ওমরাহ পালন করে তিনি গত ১৩ মার্চ তার এক ছেলেসহ দেশে ফেরেন। পরে ১৭ মার্চ তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে ‘বিদেশ থেকে আসার বিষয়টি সম্পূর্ণ গোপন রেখে’ তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত ২২ মার্চ মহিলাটির চিকিৎসকরা তার শরীরের স্যাম্পল সংগ্রহ করে টেস্টের জন্য ঢাকার আইইডিসিআর ল্যাবে পাঠান। গত ২৪ মার্চ টেস্ট রিপোর্ট আসলে জানা যায়, তার শরীরে করোনা ভাইরাস জীবাণু সংক্রমিত হয়েছে। পরে গত ৪ দিন যাবৎ করোনা ভাইরাস আক্রান্ত মহিলাটিকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের পঞ্চমতলায় ৫০১ নাম্বার কেবিনে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল।

মুসলিমা খাতুনের জ্বর, কাঁশি, সর্দি, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্ট ও পাতলা পায়খানার উপসর্গ ছিল।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!