কুতুবদিয়ায় গ্রামের বাড়িতে এসে হোম কোয়ারেন্টাইনে ঢাকাফেরত নার্সিংছাত্রী

কুতুবদিয়ায় গ্রামের বাড়িতে এসে হোম কোয়ারেন্টাইনে ঢাকাফেরত নার্সিংছাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুতুবদিয়া
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

উম্মে আইমান উর্মি। বয়স ২১ বছর। বাবা আকতার কামাল। দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ার আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের মশরফ আলী সিকদার পাড়ার বাসিন্দা তিনি। উর্মি ঢাকা নার্সিং ইনস্টিটিউটের ৩য় বর্ষের ছাত্রী। বাড়ি ফেরার আগে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন। গত ১৭ মার্চ তিনি ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়ি কুতুবদিয়ায় আসেন। আর বাড়ি ফিরেই তাকে যেতে হয়েছে হোম কোয়ারেন্টাইনে।

ঢাকা থেকে ফেরার বিষয়টি গোপন করে জ্বর, সর্দি ও কাশি নিয়ে কুতুবদিয়া হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডাঃ রেজাউল হাসানের চেম্বারে চিকিৎসা নেন। পরে গত ২৫ মার্চ ওই ছাত্রী পুণরায় চিকিৎসা নিতে গেলে বিষয়টি প্রকাশ হয়ে যায়। তারপর তাদের বাড়িটি লকডাউন করে দেয় প্রশাসন। তাকে রাখা হয় হোম কোয়ারেন্টাইনে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) ডাঃ জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী জানান, উপজেলা প্রশাসন তারপরও সতর্কতামূলকভাবে সন্দেহজনক রোগী হিসেবে ওই ছাত্রীকে পরিবারের সকলের নিকট থেকে আলাদা থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে তাকে।

তিনি জানান, রোগীর রক্তের স্যাম্পল সংগ্রহ করে পরীক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

এদিকে রোগীর সংষ্পর্শে আসা কুতুবদিয়া হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডাঃ রেজাউল হাসানসহ সকলকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জিয়াউল হক মীর বলেন, ওই রোগীর স্যাম্পল সংগ্রহ করে পাঠানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত ওই রোগী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কিনা বলা যাবে না।

প্রশাসন এ ব্যাপারে কঠোরভাবে নজরদারি করছে বলেও জানান তিনি।