রাসেল চৌধুরীর স্ট্যাটাস

বাহ্ ডিসি সাহেব, বাহ্

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

রাসেল চৌধুরী, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক কর্মী। তিনি এক সময় কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগেরও নেতা ছিলেন। এখন কাজ করেন জাতীয় ট্যাবলয়েড দৈনিক মানবজমিনে। পত্রিকাটির কক্সবাজারস্থ স্টাফ রিপোর্টার হিসাবে কাজ করার পাশাপাশি রোহিঙ্গা শিবিরে ঠিকাদারিও করেন।

তিনি আবার উখিয়া উপজেলার বাসিন্দা। নিজের বাড়ি হওয়ায় নিয়মিতই উখিয়ার সাথে যোগাযোগ। সেই তিনি উখিয়ার ইনানীতে ৩টি আবাসিক হোটেলকে করোনা ভাইরাসজনিত সন্দেহভাজনদের জন্য ‘প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন’ ঘোষণা করায় আক্ষেপ, আসসোস আর নিজেদের দূর্ভাগা ভেবে নাতিদীর্ঘ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

সোমবার (২৩ মার্চ) বিকেল ৩টার দিকে দেয়া এই স্ট্যাটাসটি তিনি লিখেছেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসককে উদ্দেশ্য করে। তিনি সেই স্ট্যাটাসটির শিরোনাম দিয়েছেন, ‘বাহ্যিক ডিসি সাহেব, বাহ্’।

সেই স্ট্যাটাসটি কক্সবাজার ভিশন ডটকম পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

বাহ্ ডিসি সাহেব, বাহ্
এমনিতেই ১১ লাখ রোহিঙ্গার চাপে পৃষ্ট হওয়ার অবস্থায় উখিয়াবাসী। আমাদের উখিয়া আজ আর আমাদের হাতে নেই। এর নিয়ন্ত্রণ চলে গেছে রোহিঙ্গা ও তাদের নিয়ে কাজ করা এনজিওগুলোর হাতে। আমাদের জনপদে আমাদের চলতে হয় জম্ম নিবন্ধন, ন্যাশনাল আইডি কার্ড হাতে নিয়ে! দফায় দফায় জেরার মুখে!! আমাদের চিরচেনা উখিয়ায় কতোদিন প্রাণখোলে নি:শ্বাস নিতে পারিনা। ধুলো বালির কারণে আমাদের নাকমুখ চেপে ধরে চলতে হয়। চলার সুযোগও নেই। অতিরিক্ত গাড়ীর চাপে রাস্তায় বেরোতে পারিনা। ঘন্টার পর ঘন্টাা যানজটে পড়ে নাকাল হয়নি এরকম লোক উখিয়ায় একজনও খোঁজে পাবেন না। কতোদিন, বাজারে গিয়ে তাজা মাছ পায় না, তরিতরকারি পায়না, আমরা বাজারে পৌছার আগেই তা চড়া দামে রোহিঙ্গারা কিনে নিয়ে যায়।
আমাদের প্রতিটি দিন কাটছে নিদারুণ কষ্টের মধ্যে।
আপনি কি জানেন, আমরা উখিয়াবাসী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর কাছে একপ্রকার জিম্মিদশার মধ্যে আছি? প্রতিনিয়ত তাদের ভয়ে তটস্থ থাকি? তাদের হাতে নিগৃহীত হওয়ার ভয়ে গা রক্ষা করে চলি! তাদের কারণেই আমরা মারাত্মক সামাজিক, অর্থনৈতিক, পরিবেশ, প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংকটে?
শুধু কি তাই, আমাদের রাতবিরেত কাটে তাদের অস্ত্রের ঝনঝনানির ভয়ে!! আমাদের ধানি জমি, খেতখামার পাহাড় সব আপনার নির্দেশে তাদের দিয়ে দিয়েছি, তা তারা ভালমতোই ভোগ করছে।
আমরা সব সয়ে যাচ্ছি। টুঁশব্দ করিনি। এতো ঝুঁকির মাঝে গত কয়েকদিন ধরে নতুন করে করোনা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছি আমরা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিদেশীদের অবাধ যাতায়াত। এ কারণে জেলার অন্যান্য এলাকার চেয়ে ঝুঁকিটা আমাদেরই বেশী। এরমধ্যে শুনলাম, আপনি কোয়ারান্টাইন সেন্টার করার জন্য উখিয়াকে বেছে নিয়েছেন!! বাহ্ ডিসি সাহেব, বাহ্।
এই যেন মরার উপর খাড়ার ঘা। ঝুঁকির উপর ঝুঁকি। গজবের উপর গজব।
আপনার এ ঘোষণার পর থেকে বৃহত্তর ইনানীর মানুষ ক্ষুব্ধ, হতাশ। আতংকিত, উৎকণ্ঠিত। বলা যায়, প্রত্যেকের হার্টবিট বেড়ে গেছে।
প্লিজ, আমাদের প্রতি সদয় হোন, দয়া করে আমাদের রেহাই দিন।।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!