সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নাগরিকদের ‘স্যার’ ডাকবেন, চায় দুদক

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নাগরিকদের ‘স্যার’ বলে সম্বোধন করবেন- এমনটাই চায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ এ কথা বলেন।

অক্সফাম ইন্টারন্যাশনালের গ্লোবাল প্রোগ্রাম ডিরেক্টর ফ্রাঙ্ক করটোডার নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল এদিন দুদক চেয়ারম্যানের সঙ্গে বৈঠক করেন।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দুদকের গণশুনানিতে জনগণের কাছে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রত্যক্ষভাবে জবাবদিহি করতে হচ্ছে।

এর মাধ্যমে জনগণই যে রাষ্ট্রের মালিক, সেটা প্রত্যক্ষভাবে অনুধাবন করা যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আমরা চাই প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা সেবাগ্রহীতা নাগরিকদের ‘স্যার’ সম্বোধন করবেন।
তিনি বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে সরকারি পরিষেবার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি আরও বাড়াতে কমিশন দেশব্যাপী গণশুনানি কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এর মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে সেবাগ্রহীতা নাগরিকদের মধ্যে একটি মিথস্ক্রিয়া যেমন হচ্ছে, তেমনি সরকারি কর্মকর্তারাও তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে আরও সচেতন হচ্ছেন।

দেশের ২৬ হাজারেরও বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান দুর্নীতিবিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে অক্সফাম বাংলাদেশের অংশীদারত্বের প্রশংসা করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দুদকের এই কর্মপ্রক্রিয়ায় অক্সফামের অংশগ্রহণে আমরা খুশি। কমিশন এ–জাতীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সততা ও নৈতিক মূল্যবোধ প্রোথিত করার চেষ্টা করছে।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দুদকের প্রশিক্ষণ ও আইসিটি অনুবিভাগের মহাপরিচালক এ কে এম সোহেল, অক্সফামের দেশীয় পরিচালক দীপঙ্কর দত্ত, সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার মাহফুজা আক্তার, সিনিয়র ইনফ্লুয়েনসিং অফিসার মেহবুবা ইয়াসমিন প্রমুখ।