সেন্টমার্টিন রুটে ‘পারিজাত’ ও ‘দোয়েল পাখি’ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

সেন্টমার্টিন রুটে ‘পারিজাত’ ও ‘দোয়েল পাখি’ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

নুরুল হক, টেকনাফ
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে যাত্রীবহন করে কক্সবাজারের সেন্টমার্টিন গেলেন পর্যটকবাহী দু’টি জাহাজ। শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) সকালে কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অমান্য করে টেকনাফের দমদমিয়া জাহাজ ঘাট থেকে পর্যটক ৮ শতাধিক যাত্রী নিয়ে সেন্টমাটিনে যায় এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১।

এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহণ (বিআইডব্লিউটিএ) কর্তৃপক্ষ বন্দর ও পরিবহণ বিভাগের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) নয়ন শীল। তিনি বলেন, ‘সুপ্রিমকোর্টের আদেশ পাওয়ার পর টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে চলাচলকারি এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১ নামক পর্যটকবাহী জাহাজ দু’টি চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কিন্তু জাহাজ কতৃপক্ষ আদেশ অমান্য করে শুক্রবার সকালে ৮’শর বেশি যাত্রীবহন করে দ্বীপে রওনা করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘জাহাজ দু’টি নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে চিঠির মাধ্যমে অবহিত করা হয়েছে। তবে শুক্রবার জাহাজ দু’টিকে চলাচলে বাধা দিলে-তা মানেনি। এ বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহণ সূত্র জানায়, গত ২৩ জানুয়ারি বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহণ (বিআইডব্লিউটিএ) কর্তৃপক্ষ বন্দর ও পরিবহণ বিভাগের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) স্বাক্ষরিত বাঅনৌপক/চট্র:/নৌ-নিট্রো/প্রশাসন/২০১৮/৪০ নং স্মারকমূলে টেকনাফ নৌ পুলিশের বরাবরে পর্যটকবাহী জাহাজ এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১ এর টেকনাফ-সেন্টমাটিন নৌ-রুটের চলাচলের পারমিট স্থগিতের বিষয়ে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন। সেখানে আগামি ১ মার্চ পর্যন্ত পর্যটকবাহী জাহাজ দুইটি এই নৌ-রুটে চলাচল বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। ইতোপূর্বে হাইকোর্টে দায়েরকৃত রীট পিটিশন নাম্বার ১১৮১৭/২০১৯ এর আদেশ আনুযায়ী নৌপথে বে অব বেঙ্গল গ্রুপ টুরিজমের ভাড়াকৃত পর্যটকবাহী জাহাজ এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১ ঢাকা প্রধান কার্যালয় থেকে সময়সূচী জারি করা হয়। সুপ্রিমকোর্টের দায়েরকৃত সিভিল পিটিশেন ফর লিভ টু আপিল নাম্বার ১৬৬/২০২০ এর আদেশ অনুযায়ী টেকনাফ-সেন্টমাটিন নৌ-রুটের চলাচলকারি পর্যটকবাহী জাহাজ এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১ এর চলাচলের রুট পারমিট স্থগিত করা হয়। এই মামলায় গত ১৯ জানুয়ারি আদালত জারিকৃত রুট পারমিট ও সময়সূচী আগামি ২ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত করেন।

এ প্রসঙ্গে টেকনাফের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে পর্যটকবাহী দুইটি জাহাজ চলাচল বন্ধ খবর শুনেছি। তবে লিখিত কোন কাগজপত্র পাইনি।’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) টেকনাফ অঞ্চলের সমন্বয় কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন বলেন, ‘শুক্রবার সকালে এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১ নামক পর্যটকবাহী জাহাজ দু’টিকে বাধা দেয়া হয়েছিল। পর্যটকদের ফিরিয়ে আনার কথা বলে জাহাজ দু’টি দ্বীপে রওনা করেন।

টেকনাফ নৌ-পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ইনচার্জ) মো. আব্দুল্লাহ বলেন, ‘বিআইডব্লিউটিএ’র পক্ষ থেকে এমবি পারিজাত ও এমবি দোয়েল পাখি-১ নামে জাহাজ দু’টি চলাচল বন্ধের একটি চিঠি পেয়েছি। এখন আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাহাজ কর্তৃপক্ষের এক কর্মকর্তা জানান, ‘আদালতের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে এখন অবগত হয়েছি। তবে এর আগে তাদের জাহাজে করে দ্বীপ ভ্রমণে যাওয়া পর্যটকদের ফিরিয়ে আনতে রাউন্ডট্রিপ হিসেবে শুক্রবার সেন্টমার্টিন যায় জাহাজ। পর্যটকদের নিয়ে আসার পর জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখা হবে।’

প্রসঙ্গত, ২৬ অক্টোবর থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচল শুরু হয়। এই রুটে বর্তমানে ৬টি জাহাজ চলাচল করবে।