রুগ্ন তৃণমূল, মোটাতাজা হাইব্রিড!

রাশেদুল ইসলাম, একজন আপাদমস্তক আওয়ামী লীগ নেতা আর কর্মী। তিনি দীর্ঘকাল ধরে আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত। তিনি বহুবার কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র আর কক্সবাজার সদর-রামু সংসদীয় আসনে প্রার্থী হওয়ার জন্য দলীয় হাইকমান্ডের কাছে চেষ্টা-তদবির করেছেন। সুযোগ পাক বা না পাক, তিনি আওয়ামী রাজনীতির সাথেই জড়িয়ে আছেন।

বর্তমান আওয়ামী লীগের রাজনীতি নিয়ে তিনি শনিবার (৩০ নভেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে ফেসবুকে নাতিদীর্ঘ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

রাশেদুল ইসলাম বাবা এডভোকেট জহিরুল ইসলাম ছিলেন আওয়ামী লীগের স্তম্ভ। যদিও শেষ দিকে এসে তিনি গণফোরামের সাথে জড়িয়ে যান। তাঁরই বড় ছেলে রাশেদুল ইসলাম। যিনি আওয়ামী রাজনীতির সাথেই জড়িয়ে আছেন।

রুগ্ন তৃণমূল, মোটাতাজা হাইব্রিড!

রাশেদুল ইসলামের দেয়া নাতিদীর্ঘ সেই স্ট্যাটাসটি কক্সবাজার ভিশন ডটকম পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

গরু মোটাতাজাকরণ ব্যবসা বেশ লাভ জনক হিসেবে পরিচিত সারা দেশে। ব্যবসা হিসাবেও হালাল ও বৈধ। সারা দেশে অনেক তরুণ এই ব্যবসায় হাত বাড়িয়েছেন, ভালোই করছেন।

আমাদের নেতারা ব্যবসা হিসেবে বেছে নিয়েছেন এই মোটাতাজাকরণ ব্যবসা।

তফাৎ গরু মোটাতাজাকরণ নয় বিএনপি- জামাত মোটাতাজা করণ। এটি আরো বেশী লাভ জনক। লসের কোন সম্ভাবনা নেই নগদে লাভ আর লাভ।

জেলা আওয়ামী লীগে নাদুস নুদুস এই রকম বেশ কিছু(বিএনপি-জামাতি) নেতা স্থান পেয়েছে আগেই। এখন উঠে পড়ে লেগেছে ইউনিয়ন ও উপজেলায় স্থান করে দিতে।

নতুন কমিটি হবে নতুন হাইব্রিড যোগ না হলে নেতাদের ব্যবসায় লাভ কোথায়,সফলতা কোথায়। তাইতো মহেশখালীতে নদী খেকো বিএনপি নেতাকে দেওয়া হয় ইউনিয়ন পরিষদের নমিনেশন। পেকুয়ায় এমপি ও জেলা উপজেলা আওয়ামী লীগের যৌথ প্রযোজনায় চলছে বড়ো আকারের হাইব্রিড বিএনপি – জামাত মোটাতাজা করণ প্রকল্প। সব জায়গায় জোরেশোরে চলছে এই প্রকল্প।

নেতাদের ব্যবসা আরো সফল ও লাভ জনক হবে। নেতাদের আরো দালান হবে, এপার্টমেন্ট হবে,নেতা পুত্রদের ব্যবসা আরো ফুলেফেঁপে উঠবে, নেতা পত্নীদের মণে মণে স্বর্ণালংকার হবে। ব্যাংকে এতো টাকা রাখার স্থান হবেনা। নামে বেনামে সম্পদ হবে, সিন্দুক ও তোশকের নিচে কোটি কোটি টাকা আরো বাড়বে।

হাইব্রিডের এই যুগে, তৃণমূলের বঙ্গবন্ধু প্রেমী নেতারা আরো কাঙ্গাল হবে,রুগ্ন হবে, তাদের নিয়ে শ্রুতি মধুর বক্তব্য হবে,কথা হবে রচনা হবে। বক্তব্যের মাধুর্য বাড়াতে তারা আরো রুগ্ন হবে,মলিন হবে।

ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলায় নেতাদের আমি লীগ প্রতিষ্ঠা হবে। হারিয়ে যাবে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তিলে তিলে গড়ে উঠা তৃনমূল আওয়ামী লীগ।