কক্সবাজারে বন্ধ ‘জন্ম নিবন্ধন’ খুলে দিতে রিট করায় সংবর্ধিত এড. লিনা

কক্সবাজারে বন্ধ ‘জন্ম নিবন্ধন’ খুলে দিতে রিট করায় সংবর্ধিত এড. লিনা

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার জেলায় দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকা ‘জন্ম নিবন্ধন’ চালুর দাবিতে হাইকোর্টে রিট করায় সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ও কক্সবাজারের সন্তান এড. নাসরিন ছিদ্দিকা লিনাকে সংবর্ধিত করেছে ‘কক্সবাজার সিভিল সোসাইটিজ ফোরাম’।

শনিবার (৯ নভেম্বর) রাতে শহরের একটি অভিজাত হোটেলে এড. লিনাকে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করা হয়।

সংবর্ধনা সভায় সভাপতিত্ব করেন কক্সবাজার সিভিল সোসাইটিজ ফোরামের সভাপতি ও দৈনিক রূপালী সৈকত সম্পাদক ফজলুল কাদের চৌধুরী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ফজলুল করিম, দৈনিক কক্সবাজার এর পরিচালনা সম্পাদক মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলাম, দৈনিক সমুদ্রকন্ঠের সম্পাদক মঈনুল হাসান পলাশ, বাংলাভিশন ষ্টাফ রিপোর্টার এম আর খোকন, সিভিল সোসাইটিজ ফোরামের সহ-সভাপতি আবু নাছির মোঃ হেলাল, কমরেড সমীর পাল, সাংস্কৃতিক কর্মী আব্দুল মতিন আজাদ, প্রফেসর আনোয়ার হোসেন, আমরা কক্সবাজারবাসির সমন্নয়ক এইচ এম নজরুল ইসলাম, ফয়সাল সাকিব, আমরা কক্সবাজারবাসীর সংগঠক আজিম নিহাদ, মো. নেজাম উদ্দিন, নারী নেত্রী যোবাইদা খানম মুন্নি, ত্রিপর্ণা ধর, বাধন সরকার প্রমুখ।

কক্সবাজারে বন্ধ ‘জন্ম নিবন্ধন’ খুলে দিতে রিট করায় সংবর্ধিত এড. লিনা

প্রসঙ্গত, কক্সবাজার জেলার চারটি পৌরসভা ও ৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় জন্মনিবন্ধন প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট। এই এলাকাগুলোয় জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম পুণরায় চালু করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সরকার সচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, নির্বাচন কমিশন, রেজিস্ট্রার জেনারেল (জন্ম ও মৃত্যু), চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার ও কক্সবাজারের জেলা প্রশাসককে চার সপ্তাহের মধ্যে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

কক্সবাজারের বাসিন্দা ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী নাসরিন ছিদ্দিকা লিনার করা এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে গত মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রুল জারি করেন।

এ বছরের ৮ মে দৈনিক কক্সবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত ‘২০ মাস ধরে বন্ধ জন্ম নিবন্ধন’ শীর্ষক প্রতিবেদন যুক্ত করে গত ২৯ অক্টোবর ওই রিটটি করেন এডভোকেট লিনা। যার নম্বর ১১৩৫১/২০১৯।

রিটে জন্মনিবন্ধন প্রক্রিয়া পুণরায় চালুর নির্দেশনা চাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, আইনজীবী নাসরিন ছিদ্দিকা লিনা কক্সবাজার পৌরসভার রুমালিয়ারছড়ার বাসিন্দা। তিনি কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ আয়কর আইনজীবী ছৈয়দুল হকের মেয়ে এবং বর্তমানে কেন্দ্রিয় আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য।

লীনা ঢাকার আইন অঙ্গনে অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ। তাঁর স্বামী ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান লিখন। ২০০৪ সালে তিনি ঢাকায় আইনজীবী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেছেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এডভোকেট সাহারা খাতুনের অধীনে। এখনও তাঁর অধীনেই কাজ করছেন।

বিগত দীর্ঘ সময় ধরে দলীয় নেতাকর্মীদের হয়ে তিনি অসংখ্য মামলায় লড়েছেন বিনাপারিশ্রমিকে।

তাঁর করা কয়েকটি মামলা আলোড়ন তুলেছে দেশব্যাপী। যে রীটের প্রেক্ষিতে দেশের সর্বোচ্চ আদালত লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেই রীটের পিটিশনারও ছিলেন এই নাসরিন ছিদ্দিকা লিনা।

নিকট অতীতে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে কোন বিষয় ছিল না। তখন অভিযোগ ছিল, জামায়াত-শিবির মাদ্রাসাগুলো ব্যবহার করতো! ওই অবস্থায় ২০১৪ সালে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে বিষয় রাখার নির্দেশনা চেয়ে আদালতে রীট করেন লিনা। পরে আওয়ামী লীগ সরকার মাদ্রাসা সিলেবাসে ওই বিষয় অন্তর্ভুক্ত করে।