দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ‘জিবিভি’ সচেতনতা সভা করল কক্সবাজার মডেল থানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার জেলা পুলিশের আয়োজনে ইউএনএফপিএ’র সহযোগিতায় সদর থানাধীন দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কমিউনিটি সচেতনতামূলক সভা করেছে কক্সবাজার সদর মডেল থানা।

বুধবার (৩০ অক্টোবর) শহরের আলির জাহাল ইসলামিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসা ও পিএমখালীর ছনখোলা মডেল হাইস্কুলে আয়োজিত জেন্ডারভিত্তিক অপরাধ ‘ষ্টপ জিবিভি’ শিরোনামে আয়োজিত সভায় নারী ও শিশু অপরাধ দমন, নারী ও শিশুদের প্রয়োজনীয় আইনী সেবা এবং সহায়তার বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর মডেল থানার নবাগত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহাজাহান কবির। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) মোহাম্মদ ইয়াছিন, উপ-পরিদর্শক নুরজাহান, সদর কমিউনিটি পুলিশিংয়ের দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিক মহিউদ্দিন মাহী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওসি শাহাজাহান কবির বলেন, ‘জেন্ডারভিত্তিক অপরাধ, বিশেষ করে সমাজের নারী ও শিশুরা নানা অনাকাঙ্খিত অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এটা আসলে ঠিক নয়। কেউ আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না বা ঠুনকো অপরাধে অপ্রাপ্ত বয়স্ক শিশুদের অত্যাচার করা যাবে না।’

ওসি মনে করেন, ইভটিজিং প্রতিরোধ করতে হলে আগে নিজেরা সচেতন হতে হবে। যেমন বাড়ি থেকে বের হয়ে স্কুলে আসার আগে মেয়ে শিক্ষার্থীদের দলবেঁধে আসতে হবে। যদি পথে-ঘাটে ইভটিজিংয়ের শিকার হয় তাহলে প্রথমে কঠিন ভাবে প্রতিবাদ করতে হবে। পরবর্তীতে পুলিশকে জানাতে হবে।

বাল্যবিবাহ ঠেকাতে নিজেদে সাহসী, কৌশলী ও উদ্যোগী হতে কিশোরীদের উদাহারণ হিসেবে দেখিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারন্যাশনাল উইমেন অব কারেজ পুরস্কার পাওয়া ঝালকাঠির স্বর্ণ কিশোরী শারমিন।

ওসি শাহজাহান কবির বলেন, ২০১৭ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেয়া শারমিন নিজের বাল্যবিবাহ ঠেকিয়ে দিয়েছিলো নবম শ্রেণীতে পড়ার সময়েই। বিয়ে না করায় তার ওপর মায়ের নির্যাতনও তাকে রুখতে পারেনি।
এমনকি মা ও হবু বরের বিরুদ্ধে মামলা করে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ করে এখন সে কিশোরীদের রোল মডেল। যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্টলেডি ম্যালেনিয়া ট্রাম্পের কাছ থেকে উইমেন অব কারেজ পুরস্কার নেয়া শারমিন স্বর্ণ-কিশোরী নেওয়ার্কের একজন সদস্য।

ওসি বলেন, শারমিন যদি বাল্যবিয়ে ঠেকাতে পারে তোমরা কেন পারবে না।

সভায় সারাদেশে ছড়িয়ে পড়া গুজবের বিষয়ে সবাইকে সচেতন হবার আহবান জানিয়ে পুলিশে জানানোর জন্য ৯৯৯ নাম্বার এবং নিজের নাম্বার, থানার ডিউটি অফিসারের নাম্বার শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেন ওসি সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহজাহান কবির।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজার সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মোহাম্মদ ইয়াছিন বলেন, বিকৃত মানষিকতা পুরুষের লালসার শিকার হচ্ছে মেয়ে শিশুরা। এ ধরণের কাজ যারা করবে তারা সমাজের দুশমন। এদের কঠিন শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। আর অসহায় যে সব ভিকটিম আইনি সহায়তা নিতে পারে না বা পায় না, তাদের আইনি সহায়তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে পুলিশ। এসব অসহায় ভিকটিমদের পক্ষে আইনি সহায়তা দেয়ার জন্য প্রতিটি থানায় সহায়তা সেল খোলা হয়েছে। সেখানে তারা প্রয়োজনীয় আইনি সহায়তা নিতে পারবে কোন ঝামেলা ছাড়াই।

এদিকে সভা শেষে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধমূলক শিক্ষার্থীদের নিয়ে একটি ৮ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি তৈরি করে দেয়া হয়। তাদের জন্য একটি করে টি-শার্ট উপহার দেয় কক্সবাজার সদর মডেল থানা।

‘ষ্টপ জিবিভি’ শিরোনামে পৃথক দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আয়োজিত সভায় বক্তব্য রাখেন আলির জাহাল ইসলামিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহাব উদ্দিন সিকদার, সুপার রফিক বিন ছিদ্দিক, এডভোকেট জুবাইর, আবু ছিদ্দিক বাবুল ও আনজুমা বাহার।

এদিকে ছনখোলা মডেল হাইস্কুলে বক্তব্য রাখেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাস্টার অছিয়র রহমান, মাওলানা গোলামুর রহমান, ব্যবসায়ী আহসান উল্লাহ হাসান ও একরামুল হুদা।

শিক্ষকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাদ্দাম হোসেন, আরিফুর রহমান, মাহবুবুল আলম, হেলাল উদ্দিন, সোমা শর্মা, বেবি তাসনিম, তছলিমা আক্তার মুন্নি।

এছাড়াও এসব স্কুলে আয়োজিত জনসচেতনতামুলক সভায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্কুল ম্যানেজিং কমিটি সদস্যসহ বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।