চকরিয়ায় কোদাল দিয়ে স্বামীর এক আঘাতে খুন স্ত্রী, ঘাতক আটক

রাঙামাটিতে সংঘর্ষে যুবলীগ কর্মী নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, চকরিয়া
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের বৃহত্তর উপজেলা চকরিয়ায় পারিবারিক বিরোধের জের ধরে কোদালের কুপে স্বামীর হাতে খুন হয়েছেন নয়ন মনি (২৮) নামের এক গৃহবধূ।

মঙ্গলবার বিকাল ৩টার দিকে উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের ৬ নাম্বার ওয়ার্ডের পরিষদ পাড়া এলাকায় এই হত্যাকান্ড ঘটে। বুধবার দুপুরের দিকে গৃহবধূ নয়ন মনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

হত্যাকাণ্ডে নিহত গৃহবধূ নয়ন মনি ওই এলাকার জালাল উদ্দিনের স্ত্রী। ঘটনার পর ঘাতক স্বামী জালাল উদ্দিনকে পুলিশ আটক করেছে। তিনি একই উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের পরিষদ পাড়া এলাকার খুইল্যা মিয়ার ছেলে।

নিহত গৃহবধূর সংসারে এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রয়েছে।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ১০ বছর আগে চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন পরিষদ পাড়া এলাকার খুইল্যা মিয়ার ছেলে জালাল উদ্দিনের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় একই এলাকার নয়ন মনির সাথে। বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবন সুখের মধ্যেই কেটেছিল। নয়ন মনির সংসারে ৯ বছরের এক ছেলে ও ৩ বছরের এক মেয়ে রয়েছে। বিয়ের পর থেকে তাদের সংসারে কোন দিন ঝগড়া বিবাদও হয়নি।

মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) বেলা ১২টার দিকে জালাল উদ্দিন ও তার স্ত্রী নয়ন মনির সাথে পারিবারিক তুচ্ছ বিষয় নিয়ে তর্কাতর্কি হয়। একপর্যায়ে স্ত্রী নয়ন মনিকে শারিরিক নির্যাতন করে কোদাল দিয়ে তার মাথায় আঘাত করলে তিনি অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে আহত স্ত্রী নয়ন মনিকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। পরে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক স্ত্রী নয়নের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানোর নির্দেশনা দেন। বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে আহত নয়ন মনি চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান। তিনি বলেন, ঘটনার দিন রাতে নিহতের চাচা মোহাম্মদ হোসেন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক স্বামী জালাল উদ্দিনকে আটক করেছে।

তিনি বলেন, নিহত গৃহবধূ নয়ন মনির স্বামী জালাল উদ্দিনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় জড়িত অন্যদের আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।