তরুণীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ

তরুণীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় পোশাক কারখানার এক নারী শ্রমিক (১৮) গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত দুই যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার রাতে উপজেলার কুড়িপাড়া এলাকার জনৈক রনি মিয়ার পরিত্যক্ত ঘরে এ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার সকালে ভুক্তভোগী নারী শ্রমিকের মা বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা করেন। মামলার পর দুজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলো কুড়িপাড়া এলাকার আব্দুল জলিলের ছেলে সজিব মিয়া ওরফে ছগির (২২) ও একই এলাকার আকবর আলীর ছেলে আরমান আলী (২০)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, সোমবার কারখানা ছুটির পর বাসায় যাচ্ছিলেন ওই তরুণী। সন্ধ্যা ৭টায় উপজেলার কুড়িপাড়ার রাস্তায় পৌঁছালে ছগির ও আরমান পেছন থেকে তরুণীর মুখ চেপে ধরে পাশের একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে যায়।

সেখানে তরুণীর ওড়না দিয়ে মুখ বেঁধে প্রথমে ছগির ও পরে আরমান ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে পালাক্রমে তরুণীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে তারা। এতে তরুণী অসুস্থ হয়ে পড়লে ছগির ও আরমান পালিয়ে যায়। রাতে রক্তাক্ত অবস্থায় বাসায় ফিরে মাকে বিস্তারিত ঘটনা জানান তরুণী।

ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় রাতেই ওই নারী শ্রমিকের মা থানায় অভিযোগ দেন। এর প্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুই যুবককে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গণধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে তারা।মঙ্গলবার সকালে মামলা হলে দুই যুবককে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। ওই নারী শ্রমিককে উন্নত চিকিৎসার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।