‘গায়েবী’ আগুনে পুড়ে ছাই মাদক কারবারির বসতবাড়ি!

এক আগুনেই পুড়ে পরিবারের আটজনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকনাফ
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে ‘গায়েবী’ আগুনে পুড়ে ছাই হয়েছে এক ইয়াবা কারবারির বসতবাড়ি!

সূত্র মতে, মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) গভীর রাতে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড হাতিয়ার ঘোনা এলাকায় আব্দুল গফুর ওরফে ওলা গফুরের বসতবাড়িটি আগুন লেগে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। কে বা কারা এই ঘটনাটি সংঘটিত করেছে- তার সঠিক কোন তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি।

তথ্য সুত্র জানায়, গত ১২ অক্টোবর ভোর রাতে টেকনাফে কর্মরত র‍্যাব-১৫ সদস্যরা গোপন সংবাদের মাধ্যমে খবর পেয়ে একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে সদর ইউনিয়নের হাতিয়ার ঘোনা এলাকার মাদক কারবারি গফুরের বাড়ি তল্লাশি করে। ওই সময় ৬২ হাজার ৪০০ পিস ইয়াবা ও নগদ ৭ লাখ ৭০ হাজার টাকা, দেশীয় তৈরী একটি অস্ত্র, ৩ রাউন্ড গুলি ও ২টি রাম দা উদ্ধার করা হয়।

ওই অভিযানে গফুরের স্ত্রী ফাতেমাকে আটক করে র‍্যাব। ফাতেমা এখন কারাগারে রয়েছেন।

এদিকে অভিযানের দুইদিন পর গফুরের বসতঘরটি ১৫ অক্টোবর রাতে আগুন লেগে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

এব্যাপারে স্থানীয়দের অভিযোগ, পুড়ে যাওয়া গফুরের বসতবাড়িতে দীর্ঘদিন ধরে সুকৌশলে বসবাস করে আসছে ওই এলাকার মৌলভী নুরুল ইসলামের ছেলে চিহ্নিত মাদক কারবারী সাদ্দাম।

তারা আরও জানান, গত ১২ অক্টোবর র‍্যাবের হাতে উদ্ধার হওয়া ইয়াবা, অস্ত্র, নগদ টাকার মালিক ও মূলহোতা হচ্ছেন মাদক কারবারী সাদ্দাম। ওইদিন র‍্যাবের অভিযান চলাকালীন সাদ্দাম কৌশলে পালিয়ে যায়। তবে র‍্যাবের রুজু করা মামলায় চিহ্নিত মাদক কারবারী সাদ্দামকে পলাতক আসামী করা হয়েছে।

স্থানীয় অধিবাসীরা জানান, গফুর ও তার স্ত্রী ফাতেমা বেশী টাকার লোভে পড়ে মাদক কারবারী সাদ্দামকে আশ্রয় দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাদক পাচারে সহযোগিতা করে আসছিল।

এব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে।

তিনি বলেন, আমরা তদন্ত করে জানতে পারি পুড়ে যাওয়া বসতবাড়িটি ইয়াবা কারবারে জড়িত গফুরের এবং ওই বাড়ির মধ্যে মাদক কারবারী সাদ্দাম বসবাস করতো।

মাদক কারবারীদের মধ্যে ইয়াবা লেনদেন, অবৈধ টাকা ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দুইপক্ষের সংঘটিত ঘটনায় প্রতিপক্ষের দেয়া আগুনে বাড়িটি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে বলেই ধারণা।