এতিম-গরিবের হক মেরে দিলো ‘চামড়া সিন্ডিকেট’!

এতিম-গরিবের হক মেরে দিলো ‘চামড়া সিন্ডিকেট’!

কোরবানিতে জবাই করা পশুর চামড়া বিক্রির টাকা মূলত এতিম, গরিব ও মিসকিনদের হক। সরকার নির্ধারিত দামে এবারে ঈদে যে গরুর চামড়া এক হাজার টাকা বিক্রি হওয়ার কথা, সেই চামড়া রাজধানী ঢাকায় বিক্রি হয় ২০০-৩০০ টাকায়। ভাল মানের যে চামড়া ১২০০-১৫০০ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা ছিল, তা বিক্রি হচ্ছে সর্বোচ্চ ৪০০ টাকা দরে।

শুধু তাই নয়, খোদ রাজধানীর কোনো কোনো জায়গায় ফোন করে অনুরোধ করার পর মৌসুমি ব্যবসায়ীরা নামকা-ওয়াস্তে কিছু টাকা দিয়ে চামড়া নিয়ে যাচ্ছেন। ফলে গত বছরের তুলনায় এ বছর চামড়া প্রতি ৬০০-৭০০ টাকা নাই হয়ে গেলো গরিবদের। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকা দরেও। আর তাতে ঠকানো হলে এতিম, গরিব ও মিসকিনদের। খবর বার্তা টুয়েন্টিফোরের।

অথচ চামড়ার দাম কমাবেন না বলে আশ্বাস দিয়ে কম দামে লবণ কেনার পাশাপাশি কম সুদে ব্যাংক থেকে ৬০০ কোটি টাকার ঋণ নেওয়ার পর সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সস্তায় চামড়া কিনছেন ব্যবসায়ীরা। পোস্তা ও ট্যানারি মালিকরা মিলে এই সিন্ডিকেট তৈরি করেছে বলে একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে।

মহাখালী হোসানিয়ার মাদরাসার শিক্ষক আওলাদ হোসেন বলেন, ‘এই এলাকার মানুষ কোরবানির চামড়া মাদরাসার ফান্ডে দেন। চামড়ার বিক্রির এই টাকায় এতিম ও দরিদ্র শিশুদের পড়াশুনা ও খাবারের খাতে খরচ করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘প্রতিবছর চামড়া বিক্রির টাকা দিয়ে অন্তত চার মাস এতিমদের বরণ পোষণ করা হয়। কিন্তু এবার চামড়া সংগ্রহের জন্য যে টাকা খরচ হয়েছে। তাও মেটেনি। ব্যবসায়ীরা এতিম,গরিবদের হক মেরে খেল। তার জবাব দিতে হবে একদিন।’

মহাখালীর আরেকটি শাকেরীয়ার (এতিম মাদরাসা ও মসজিদ) কমিটির সদস্য তারেকুজ্জামান বলেন, ‘কোরবানির চামড়ার হকদার এতিম, গরিব ও মিসকিনরা। এবার চামড়া মালিকরা মিলে এতিমদের হক মেরে দিলো।’

রাজধানীর এতিম খানা, মসজিদ ও মাদরাসাগুলোর চামড়ার দাম কিছু পেলেও ঢাকার বাইরে প্রতিষ্ঠানগুলো কিছুই পায়নি। ফলে সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চামড়া রাস্তা ও ডাস্টবিনে ফেলে প্রতিবাদ জানিয়েছে। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে চামড়া মাটিতে পুতে ফেলেছে সাধারণ মানুষ।

অন্যদিকে ঈদের দ্বিতীয় দিনে পোস্তায় গিয়ে দেখা গেছে, দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা কাঁচা চামড়া পোস্তায় সড়কে নষ্ট হচ্ছে। বিক্রি হচ্ছে না বলে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা ফেলে রেখে গেছেন।

নরসিংদী থেকে ১৮৪টি চামড়া নিয়ে আসা হাসান মিয়া বলেন, ‘ভালো দামের আশায় পোস্তায় চামড়া নিয়ে এসেছি। এখানে কেউ জিজ্ঞাসাও করছে না। তাই নিয়ে যাচ্ছি।’

আড়তদাররা বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার দাম কম হওয়ার পাশাপাশি লবণযুক্ত চামড়া না হওয়ায় কিনছি না। কারণ চামড়াগুলো নষ্ট হয়ে গেছে।’

এবার শুধু রাজধানীতে ৮৫ লাখ পশু কোরবানি করা হয়েছে। এর মধ্যে মাত্র এক লাখ পিস গরুর চামড়া কিনেছেন পোস্তার আড়তদাররা। তাদের চামড়া কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল সাত লাখ পিস। বাকি চামড়াগুলো নষ্ট হচ্ছে।

সার্বিক বিষয়ে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেন, ‘চামড়ার বাজার অস্থিতিশীল করছে পোস্তার ব্যবসায়ীরা। কাঁচা চামড়ার বাজারটা তারাই নিয়ন্ত্রণ করে, সেখানে আমাদের কোনো হাত নেই। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা যখন পোস্তায় চামড়া বিক্রি করতে যান, তখন তারা সেটি ৩০০ কিংবা তার চেয়ে কিছু বেশি টাকা দিয়ে কেনেন। কিন্তু আমাদের কাছে বিক্রির সময় তারা সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অনেক বেশি দামে বিক্রি করেন। আর এতে ক্ষতিগ্রস্ত হন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। কিন্তু পোস্তার ব্যবসায়ীদের ক্ষতিগ্রস্ত হবার বিষয়টি সঠিক নয়। এখানে সিন্ডিকেটও কাজ করে।’

তিনি বলেন, ‘মৌসুমি ব্যবসায়ীরা অনেক সময় না বুঝে কম দামে চামড়া বিক্রি করে দেন। কিন্তু তারা যদি ট্যানারিগুলো যখন চামড়া কিনে, তখন বিক্রি করে তাহলে কিন্তু তাদের কোনো লোকসান হবে না।’

প্রসঙ্গত, সরকারের নির্ধারণ করে দেওয়া দাম অনুযায়ী ঢাকায় কোরবানির গরুর প্রতিটি ২০ থেকে ৩৫ বর্গফুটের চামড়া লবণ দেওয়ার পরে ৯০০ থেকে এক হাজার ৭৫০ টাকায় কেনার কথা ট্যানারি মালিকদের। কিন্তু মৌসুমি ব্যবসায়ীরা ৩০০ থেকে ৫০০ টাকায় চামড়া কিনেছেন। আর রাজধানীর বাইরে দেশের অন্যান্য স্থানে চামড়া বেচাকেনা হচ্ছে আরও কম দামে।

কক্সবাজার ভিশন.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই পাতার আরও সংবাদ
error: Content is protected !!