সিএস নয়, আরএস জরিপে বাঁকখালী নদীর সীমানা নির্ধারণের সিদ্ধান্ত

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

সারাদেশে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া ডেঙ্গু রোগ ও এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে কক্সবাজার বিমান বন্দর, বাস টার্মিনালসহ জনসমাগমের সব জায়গায় পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। একই সাথে ডেঙ্গু রোগ নির্ণয়ে পর্যাপ্ত পরিমাণ কিটস সংরক্ষণ করার জন্য জেলা স্বাস্থ্যবিভাগকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বুধবার (৭ আগস্ট) কক্সবাজার জেলা আইন শৃংখলা সমন্বয় কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভায় বাঁকখালী নদীর দখলদার চিহ্নিতকরণ ও তাদের তালিকা তৈরীর জন্য আরএস জরিপ অনুযায়ী বাঁকখালীর সীমানা নির্ধারণ করতে হাইকোর্টের কাছে আবেদন করারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জেলা আইন শৃংখলা কমিটির এই সভায় মিয়ানমার থেকে গবাদি পশু আমদানি বন্ধ, রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটর সাইকেল জব্দ, ঈদের ছুটিতে আইন শৃংখলা রক্ষা, সেনাবাহিনী ও বিমান বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে চলে যাওয়া একাত্তরের বধ্যভূমি সংরক্ষণ, রাস্তার উপর কোরবানির পশুর হাট না বসানো, সংস্কারের নামে বন্ধ করে রাখা কলাতলী-মেরিন ড্রাইভ সড়ক খুলে দেয়া, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে বিজিবির জওয়ানদের টহলের সড়ক সংস্কার, কক্সবাজার শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক সংস্কার বিষয়ে আলোচনা করা হয়। শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো সংস্কারের জন্য কক্সবাজার পৌরসভাকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা

এছাড়া সভায় আগামী ১২ আগস্ট সকাল ৮টায় ঈদুল আযহার নামাজের জামাত অনুষ্টানের সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত এই সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার একেএম মাসুদ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট শাহজাহান আলী, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা, কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলী, মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজাহান, কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউল করিম, কক্সবাজার প্রেসক্লাব সভাপতি ও দৈনিক সৈকত সম্পাদক মাহবুবর রহমান, প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু তাহের চৌধুরী, জেলা সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি ডাঃ মহিউদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর, কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) শাহীন মোহাম্মদ আবদুর রহমান প্রমুখ।

এই সভায় পৌরসভার অধীনে সংস্কারের নামে দীর্ঘদিন ধরে কলাতলী-মেরিন ড্রাইভ সড়ক বন্ধ করে রাখায় তিরস্কার করা হয়। একই সাথে দ্রুততর সময়ে সড়কটি খুলে দেয়ার জন্য কক্সবাজার পৌর মেয়রকে আহ্বান জানানো হয়।

সভায় দীর্ঘ আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, বাঁকখালী নদীর অবৈধ দখলদারদের তালিকা তৈরী ও সিএস জরিপ অনুযায়ী বাঁকখালী নদীর সীমানা নির্ধারণের জন্য উচ্চ আদালতের যে নির্দেশনা রয়েছে তা বাস্তবায়নে সিএস জরিপের পরিবর্তে আরএস জরিপের মাধ্যমে সীমানা নির্ধারণের অনুমতি চেয়ে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে আবেদন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আদালতের নির্দেশনা পেলে বাঁকখালী নদীর সীমানা নির্ধারণ ও অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা হবে।

কক্সবাজার ভিশন.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই পাতার আরও সংবাদ
error: Content is protected !!