ভারতে পালাতে গিয়ে সীমান্তে ধরা পড়লেন জাফর চেয়ারম্যান ‍পুত্র ‘ইয়াবা গডফাদার’ শাহজাহান

ভারতে পালাতে গিয়ে সীমান্তে ধরা পড়লেন জাফর চেয়ারম্যান ‍পুত্র ‘ইয়াবা গডফাদার’ শাহজাহান

অস্ত্র, মাদকসহ একাধিক মামলার পলাতক আসামি, কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়াকে ভারতে যাওয়ার পথে আটক করেছে বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ। বৃহস্পতিবার বিকেলে তাকে আটক করা হয়। মনে করা হচ্ছে তিনি ভারতে পালানোর চেষ্টা করছিলেন।

আটক শাহজাহান মিয়া টেকনাফ উপজেলার লেংদু গ্রামের বাসিন্দা, টেকনাফ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জাফর আহমেদের ছেলে এবং দেশের আলোচিত-সমালোচিত উখিয়া-টেকনাফের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির চাচাতো ভাইয়ের ছেলে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের সেকেন্ড অফিসার খায়রুল ইসলাম বলেন, তার নামে অস্ত্র, মাদকসহ একাধিক মামলা রয়েছে। তার বিদেশ যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

তিনি বলেন, বেনাপোল ইমিগ্রেশন হয়ে ভারত যাওয়ার সময় তাকে আটক করা হয়। আটকের পরপরই তাকে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়।

এদিকে বেনাপোল পোর্ট থানায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে তাকে রাখা হয়েছে। থানার প্রধান গেট তালা দেয়াসহ সেন্টি দিয়ে কড়া প্রহরা বসানো হয়েছে। সাংবাদিকসহ কাউকে থানায় প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

পরে বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম থানার বাইরে এসে সাংবাদিকদের বলেন, তার পাসপোর্ট ব্লক করা ছিল। তাই ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে আটক করে আমাদের হেফাজতে দিয়েছে।

তার মতে, জিজ্ঞাসাবাদে আটক ব্যক্তি জানিয়েছেন, তিনি কক্সবাজারের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির চাচাতো ভাইয়ের ছেলে এবং টেকনাফ থানার শ্রমিক লীগের সভাপতি। বিষয়টি টেকনাফ থানাকে জানানো হয়েছে।

যশোর নাভারন সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) জুয়েল ইমরান বলেন, আমরা তার সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়ে বিস্তারিত জানতে পারব।

এদিকে পুলিশ সূত্র মতে, আটক শাহাজাহান মিয়া স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ৯ নাম্বার তালিকাভূক্ত ইয়াবা কারবারি।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসাইনও তার আটকের বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশের তথ্য মতে, শাহজাহান মিয়ার পাসপোর্ট ব্লক থাকায় তাকে ভারত যাওয়ার সময় আটক করা হয়। ইয়াবা ব্যবসায়ী শাহাজাহান মিয়া দীর্ঘদিন ধরে আত্মগোপনে রয়েছেন। তিনি আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর নজর এড়াতে এই কৌশল অবলম্বন করেন।

সূত্র মতে, গ্রেপ্তার এড়াতে তার বিদেশ পালানো নিয়ে সতর্কতা ছিলো। সেই কারণে তার বিদেশ গমণের উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে ভারত পালাতে গিয়ে তিনি ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ বিষয়টি কক্সবাজার জেলা পুলিশকে অবগত করেছেন।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছেন, টেকনাফ সদর ইউপি চেয়ারম্যান এবং শ্রমিক লীগ সভাপতি এই ইয়াবা কারবারি ইতোপূর্বে দুবাই পাড়ি দিতেও চেষ্টা করেন।

ইয়াবা কারবারী শাহজাহান সাবেক এমপি বদির বাম হাত এবং তার বাবা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদ ডান হাত হিসেবে পরিচিত রয়েছে। শাহজাহানের বিরুদ্ধে অস্ত্র এবং ইয়াবার ৫টি মামলা রয়েছে।

কক্সবাজার ভিশন.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই পাতার আরও সংবাদ
error: Content is protected !!