কক্সবাজারে ২ ইউপিতে আ.লীগ ও অন্যটিতে জাপা নেতা চেয়ারম্যান

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার জেলার ৩টি উপজেলা ৩টি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন হয়েছে। ৩টি ইউনিয়নের মধ্যে দুুইটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনিত নৌকার প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। আরেকটি ইউনিয়নে জাতীয় পার্টি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন। বেসরকারীভাবে নির্বাচিত এই ৩ চেয়ারম্যান হলেন টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নে রাশেদ মাহমুদ আলী, চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী ও দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ার বড়ঘোপ ইউনিয়নে শহীদ উদ্দিন ছোটন। এদের মধ্যে নাছির উদ্দিন ছোটন উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হলেও তিনি ঘোড়া প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছেন। এছাড়াও কয়েকটি ইউনিয়নে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও সাধারণ সদস্য পদেও উপ-নির্বাচন অনুষ্টিত হয়েছে। এই ইউনিয়ন গুলো হল, টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়ন, মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়ন ও চকরিয়া উপজেলা কৈয়ারবিল ইউনিয়ন। এসব ইউনিয়নেও আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এই প্রতিবেদনে তাদের বিস্তারিত তুলে ধরা হল।

চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীতে চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী
আমাদের চকরিয়া প্রতিনিধি জানিয়েছেন, কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচন গতকাল ২৫ জুলাই সম্পূর্ণ হয়েছে। এতে সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী নৌকা প্রতীক নিয়ে ৮৭৬০ ভোট পেয়ে বে-সরকারী ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী উপজলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ায় তিনি ইউপি চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেন। এ পদ শূন্য হওয়ায় গতকাল এ নির্বাচন অনুষ্টিত হয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী মাঈন উদ্দিন হাসান শাহেদ আনারস প্রতীক নিয়ে ৯ কেন্দ্রে ভোট পেয়েছেন ৯৫৩ ভোট। অপর প্রার্থী ফরিদুল আলম মিন্টু মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ৯৫০ ভোট। এ উপ নির্বাচনে মোট ৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থী থাকলেও মূলত প্রতিদ্বন্ধীতা হয় এ ৩ জনের মধ্যে। অপরদিকে কৈয়ারবিল ৯নং ওয়ার্ডে সাইফুল ইসলাম বেসরকারী ভাবে সদস্য নির্বাচিত হয়েছে।

হ্নীলা ইউনিয়নের নতুন চেয়ারম্যান আলী পুত্র রাশেদ
আমাদের টেকনাফ ও হ্নীলা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, কক্সবাজারের টেকনাফ দুই ইউপির চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত নারী আসনের উপ-নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল ৯ টা থেকে স্ব স্ব কেন্দ্রে চেয়ারম্যান ও নারী সদস্য পদে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিকাল ৫ টায় শেষ হয়। পরে ভোট গণনা শেষে বেসরকারী ফলাফলে হ্নীলা চেয়ারম্যান পদে নৌকার প্রার্থী রাশেদ মাহমুদ আলী এবং সাবরাং ইউপিতে সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে শাহেনা বেগম (মাইক) নির্বাচিত হন।

এদিকে জাল ভোট, কারচুপির অভিযোগে তুলে ভোট গ্রহনের শেষ প্রান্তে মোটর সাইকেল ও আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা আলাদাভাবে সংবাদিকদের সামনে ভোট বর্জনের ঘোষনা দেয়। হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত রাশেদ মাহমুদ আলী (নৌকা) প্রতীকে ১০ হাজার ৯২৪ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে জয় লাভ করেন। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (মোটর সাইকেল) পায় ৩ হাজার ৩৩০ ভোট ও অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী জালাল উদ্দীন চৌধুরী (আনারস) পায় ৩ হাজার ১৮৮ ভোট।

অপরদিকে সাবরাং ইউনিয়নে সংরক্ষিত নারী আসনে শাহেনা বেগম (মাইক) প্রতীকে ২ হাজার ৫৬১ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে জয় লাভ করেন। তার নিকটতম প্রার্থী ছেনুয়ারা বেগম (সূর্যমূখী ফুল) পায় ৫৭২ ভোট ও আমেনা খাতুন (হেলিকাপ্টার) ৫২৩ ভোট পায়। টেকনাফ উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বার্হী কর্মকতা মুহাঃ আবুল মনসুর জানান, কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ ও সুষ্টুভাবে টেকনাফে উপ-নিবাচন সম্পন্ন হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে বেসরকারিভাবে নৌকার প্রার্থী জয়ী হয়েছে। তবে নির্বাচনে পরবর্তী যাতে কোন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয়, সেদিকে নজরদারী রাখা হয়েছে।

কুতুবদিয়ার বড়ঘোপে চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন ছোটন
কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপ-নির্বাচনে আ.ন.ম নাসির উদ্দিন ছোটন ঘোড়া প্রতীকে ৪ হাজার ২৯২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তৌহিদুল ইসলাম খোকন আনারস প্রতীক নিয়ে ৩৬৪৫ ভোট পেয়েছেন। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল কালাম পেয়েছেন ১৯২৭ ভোট। বিষয়টি বড়ঘোপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদের উপ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ জামসেদুল ইসলাম সিকদার এই প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছেন। বিজয়ী আ.ন.ম শহীদ উদ্দীন ছোটন কুতুবদিয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি।

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই বড়ঘোপে এ উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উপ-নির্বাচনে দলীয় প্রতীকের নির্বাচন করেছে শুধু নৌকা প্রতীকের আবুল কালাম। আর অন্য দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেছেন। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বড়ঘোপ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম বর্তমানে বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে ৯টি ভোট কেন্দ্রে ৫০টি কক্ষ, অস্থায়ী ভোট কক্ষ ৬টি। মোট পুরুষ ভোটার ৯৯০৭জন, মহিলা ভোটার ৯৩৫৬ জন সহ মোট ভোটার ১৯২৬৩ জন বলে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রির্টানিং অফিসার মোঃ জামসেদুল ইসলাম সিকদার এই প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেন।

এদিকে সাধারণ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদেরও বিস্তারিত তুলে ধরা হল

শাপলাপুরের মহিলা মেম্বার মনোয়ারা কাজল
মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়নের ৪,৫ ও ৬ নাম্বার ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনে উপনির্বাচন সুষ্টু ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার ২৫শে জুলাই ২০১৯ইং তারিখে।এতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে ৩জন প্রার্থী। তারা হলেন মনোয়ারা বেগম (তালগাছ) প্রতীক, ছখিনা বেগম (সূর্যমূখী ফুল) প্রতীক, ডেজি আক্তার (বই) প্রতীক। মোট ৫৫৬৭ ভোট, পুরুষ ভোটার ২৭৪৮জন, মহিলা ভোটার ২৮১৯জন, ৩টি কেন্দ্রে ১৪টি বোতে এ ভোট অনুষ্টিত হয়।

২০৭৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছে তালগাছ প্রতীক মনোয়ারা কাজল, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ছখিনা বেগম সূর্যমূখী ফুল প্রতীক পেয়েছে ৭২০ ভোট। নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও মহেশখালী উপজেলার নির্বাচন অফিসার মোঃ জুলকার নাঈম জানান নির্বাচন সুষ্টু ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনের দায়িত্বে ২জন ম্যাজিস্ট্রেট, ১ প্লাটুন বিজিবি, বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আনসার সদস্য মোতায়েন ছিল।
মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর জানান- শাপলাপুর ইউনিয়নের ৪,৫ ও ৬নাম্বার ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা আসনে বৃহস্পতিবার উপনির্বাচন অনুষ্টিন সুষ্টু ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচিত প্রার্থী মনোয়ারা কাজল নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা সকলের প্রতি ধন্যবাদ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

চকরিয়ার কৈয়ারবিলে সাইফুল ৯নং ওয়ার্ডে মেম্বার
চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বারের শূণ্যপদে মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৭২৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেম্বার নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নুরুল ইসলাম মোরগ প্রতীক নিয়ে ৩৬৯ ভোট পেয়েছেন। অপর দুই প্রার্থী নাসির উদ্দিন তালা প্রতীক নিয়ে ৩৬ ভোট এবং মনছুর আলম টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন মাত্র ৫ ভোট পেয়েছেন।

বিষয়টি কৈয়ারবিল ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উপ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও চকরিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন এই প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছেন। এ ওয়ার্ডে ইভিএম (ইলেকট্রিক ভোটার মেশিন) এ বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ভোট গ্রহন করা হয়। ভোটারদের ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট দেয়ার জন্য জন্য গত ২৩ জুলাই মঙ্গলবার ভোট কেন্দ্রে হাতে-কলমে প্রশিক্ষন (মকভোট) দেয়ায় ভোটাররা খুবই স্বাচ্ছন্দ্যে ইভিএম-এ ভোট দিতে পেরেছেন বলে রিটার্নিং অফিসার ও চকরিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।

তিনি এই প্রতিবেদককে আরো জানান, ইভিএম মেশিনে কোন টেকনিক্যাল ত্রুটি দেখা দেয়নি। প্রসঙ্গত, কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বরের মৃত্যুতে শূন্য পদে বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই এই উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

কক্সবাজার ভিশন.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই পাতার আরও সংবাদ
error: Content is protected !!