চকরিয়ায় একদিনেই স্বামী-স্ত্রীসহ ৪ জনের লাশ, ভেসে উঠলো যুবকের মৃতদেহ

চকরিয়া-পেকুয়া ও লামায় বন্যার অবনতি, স্বামী-স্ত্রীসহ নিহত ৪ ও আহত ৬

মো. সাইফুল ইসলাম খোকন
নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের বৃহত্তর উপজেলা চকরিয়ায় টানা বৃষ্টি ও বন্যায় পাহাড় ধস, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ও পানির ¯্রােতে তলিয়ে গিয়ে একদিনে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

রোববার পানিতে তলিয়ে গিয়ে নিখোঁজ যুবকের লাশও উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার (১৫ জুলাই) ভোর ৫টার দিকে উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের আটারকুম নামক স্থান থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত মোহাম্মদ রাজু (২৫) ভেওলা মানিকচর ইউনিয়নের ৭ নাম্বার ওয়ার্ডের দিয়ারচর এলাকার মোঃ জামাল উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয় পুলিশিং কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য এম. মোস্তফা খাঁন বলেন, সোমবার ফজরের পর নিখোঁজের স্থান থেকে আনুমানিক একশ মিটার দূরে পানিতে রাজুর লাশ ভাসতে দেখা যায়।

তিনি রবিবার সকালে ওই এলাকার জকরিয়া সড়ক অতিক্রম করতে গিয়ে আটারকুম স্থানে প্রবল স্্েরাতে তলিয়ে যায়। এলাকার লোকজন দীর্ঘক্ষণ খোঁজাখুঁজির পরও তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। সোমবার ভোর ৫টার দিকে উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের আটারকুম নামক স্থান থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

এদিকে উপজেলার সুরাজপুর মানিকপুর ইউনিয়নে বন্যার পানি থেকে পরিবারকে বাঁচাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আহমদ হোসেন (৭৫) নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (১৪ জুলাই) বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে উপজেলার সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নের উত্তর মানিকপুর এলাকায় মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটে। নিহত আহমদ হোসেন ওই এলাকার মৃত আবদুল হামিদের ছেলে।

অপরদিকে উপজেলার দূর্গম পাহাড়ী এলাকা বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ৬ নাম্বার ওয়ার্ডের বমুরকুল এলাকায় পাহাড় ধসে একই পরিবারের স্বামী ও স্ত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। গত শনিবার গভীর রাত দুইটার দিকে ঘটনাটি ঘটে।

পাহাড় ধসে নিহতরা হলেন বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ৬ নাম্বার ওয়ার্ডের বমুরকুল এলাকার দিনমুজুর মোহাম্মদ ছাদেক (৩৬) ও তাঁর স্ত্রী ওয়ালিদা বেগম (২২)। নিহত ছাদেক পেশায় একজন দিনমজুর।