বর্ষায় বিচ্ছিন্ন শাহপরীর দ্বীপ, দূর্ভোগে ৪০ হাজার মানুষ

বর্ষায় বিচ্ছিন্ন শাহপরীর দ্বীপ, দূর্ভোগে ৪০ হাজার মানুষ

নুরুল হক
নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকনাফ
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

বর্ষায় টানা বৃষ্টির কারণে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ। এই এলাকার অধিবাসীদের যাতায়াত করতে হচ্ছে নৌকায়। ফলে শাহপরীর দ্বীপের ৪০ হাজার মানুষকে পৌহাতে হচ্ছে দূর্ভোগ।

সাত বছর আগে দ্বীপের সড়কটি সাগরের জোয়ারে ভেঙ্গে দেশের মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এই দ্বীপের দূরত্ব ১৩ কিলোমিটার। সাবরাং হারিয়াখালী থেকে দ্বীপ পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার সড়ক বিলীন হয়ে যায়। সড়কটির সংস্কারের অভাবে এই দূর্ভোগ পৌহাতে হচ্ছে এই এলাকার অধিবাসীদের।

২০১২ সালে জলোচ্ছ্বাসে দ্বীপের পশ্চিমাংশের বাঁধ ভেঙ্গে সাগরের পানি দ্বীপকে গ্রাস করলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে সড়কের বিশাল অংশ ভেঙ্গে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এই বাঁধ ভাঙন দিয়ে দীর্ঘ সময়ে জোয়ার ভাটার বৃত্তে বন্দি ছিল দ্বীপবাসী। ওই সময় বসত ভিটেসহ সর্বস্ব হারিয়ে অনেকে পাড়ি জমিয়েছেন অন্যত্র। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে ভাঙা বাঁধ জোড়া লাগলেও সড়ক সংস্কার এখনও হয়নি।

গত কয়েকদিন ধরে টেকনাফে চলছে মুষলধারে বৃষ্টি। এসময়ে দ্বীপে যাতায়াতকারীরা পায়ে হেঁটে ভাঙ্গা সড়কের কিছুদূর গিয়ে নৌকায় আবার কেউ স্পীড বোটে দ্বীপে যাতাোত করছেন।

বর্ষায় বিচ্ছিন্ন শাহপরীর দ্বীপ, দূর্ভোগে ৪০ হাজার মানুষ

এই দ্বীপে যাতায়াতে খরচও বাড়ছে বলে জানিয়েছেন উত্তর পাড়ার মো. ইলিয়াছ। তিনি বলেন, এভাবে চলছে দ্বীপবাসীর জীবন। এসময়ে কোন রোগী অসুস্থ হলে মরণ ছাড়া তার উপায় থাকে না। তবে শুস্ক মৌসুুুমে বেড়ীবাঁধ দিয়ে যাতায়াত করা যেতো। বর্ষায় যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা না থাকায় এই অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্র জানায়, দ্বীপ রক্ষায় শত কোটি টাকা ব্যয়ে ২ দশমিক ৬৪৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। সাগরের গ্রাস থেকে রক্ষায় বাঁধের উচ্চতা সাড়ে ৬ মিটার, প্রস্থ সাড়ে ৪ মিটার এবং বাঁধে পাথরের সিসি ব্লক স্থাপনের কাজ চলছে। ইতোমধ্যে এই কাজ শেষ হওয়ার পথে। ফলে ভাঙ্গা সড়ক সংস্কারে কোন অসুবিধা নেই বলেও জানিয়েছে সূত্রটি।

স্থানীয় মিডিয়াকর্মী জাকারিয়া বলেন, সাগরের ভাঙ্গা বাঁধ বন্ধ হলেও এখনো সড়কটি সংস্কার হয়নি। ভাঙ্গা বাঁধের ফলে এতদিন সড়ক সংস্কার হয়নি। এই বর্ষায় দ্বীপের মানুষদের আবারও কষ্ট ভোগ করতে হচ্ছে।

বাঁধ দিয়ে যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

বর্ষায় বিচ্ছিন্ন শাহপরীর দ্বীপ, দূর্ভোগে ৪০ হাজার মানুষ

সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নূর হোসেন বলেন, শাহপরীর দ্বীপ ভাঙ্গা বাঁধ বন্ধ করা হয়েছে। রক্ষা বাঁধের কাজও চলছে দ্রুত গতিতে। সড়ক সংস্কার জরুরী হয়ে পড়েছে। তবে বর্ষার পরেই সড়কের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে সড়ক ও জনপদ বিভাগের (সওজ) কক্সবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা বলেন, শাহপরীর দ্বীপ সড়কের ৮ কিলোমিটার সংস্কারে প্রকল্প পুনরায় টেন্ডার করা হচ্ছে। এ কাজ বাস্তবায়নে ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়েছিল। ওই ঠিকাদার সঠিক সময়ে কাজ না করায় টেন্ডারটি বাতিল করা হচ্ছে। পুনরায় টেন্ডার শেষে দ্রুত সড়কের কাজ করা হবে। তবে বর্ষার পরে সড়কের কাজ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।