টেকনাফে পাহাড় ধসের শংকায় এক লাখ রোহিঙ্গা

টেকনাফে পাহাড় ধসের শংকায় এক লাখ রোহিঙ্গা

নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকনাফ
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে কয়েকদিন ধরে টানা বৃষ্টিপাত চলমান রয়েছে। এতে যে কোন মুহুর্তে ঘটতে পারে পাহাড় ধসের ঘটনা। এরকম ঘটনা ঘটলে অনেক মানুষের প্রাণহানির আশংকাও করা হচ্ছে।

তবে এই বিপর্যয়ের জন্য রোহিঙ্গাদের দায়ি করা হচ্ছে। বর্তমানে টেকনাফের প্রাকৃতিক দৃশ্যঘেরা পাহাড় গুলো মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে আসা রোহিঙ্গাদের দখলে রয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা কোন নিয়মনীতি না মেনে পাহাড়ি গাছপালা কেটে বিলীন করার পর নিজেদের ইচ্ছামতো বসতি স্থাপন করে যাচ্ছে। বর্তমানে টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন পাহাড়ে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী চরম ঝুঁকির মধ্যে বসবাস করছেন। এই রোহিঙ্গারা যে কোন সময় পাহাড়-ধসের কবলে পড়ে প্রাণহানি হওয়ার আশংকায় রয়েছেন।

অন্যদিকে এই রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি অর্ধলক্ষাধিক স্থানীয় বাসিন্দা ভূমিধসের শিকার হওয়ার আশংকায় আছেন। হতদরিদ্র স্থানীয় জনগোষ্টিদের মধ্যে অনেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাহাড়ে বসবাস করে আসছেন, যারা এই ঝুঁকিতে আছেন।

এদিকে টেকনাফে কয়েকদিন ধরে টানা বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এতে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাস করা সাধারণ মানুষ গুলোর জীবন আরও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

এব্যাপারে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রবিউল হাসান বলেন, গতবছরের তুলনায় টেকনাফে পাহাড় ধসের আশংকা খুবই কম। কারণ আগে পানি জমে থাকতো, এখন পানি সরে যাওয়ার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে। তারপরও পাহাড়ী এলাকায় যারা ঝুঁকিপুর্ণ ভাবে বসবাস করছেন তাদের সরে যাওয়ার জন্য মাইকিং করে সতর্ক করা হবে।