ঈদগাঁওর লবণ বোঝাই ট্রলার ডুবে গেলো হাতিয়া চ্যানেলে, ১৩ মাঝিমাল্লা নিখোঁজ

ঈদগাঁওর লবণ বোঝাই ট্রলার ডুবে গেলো হাতিয়া চ্যানেলে, ১৩ মাঝিমাল্লা নিখোঁজ

আনোয়ার হোছাইন
নিজস্ব প্রতিবেদক, ঈদগাঁও
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার সদর উপজেলার বৃহত্তর ঈদগাঁও এলাকার লবণ শিল্প এলাকা ইসলামপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া লবণবাহী কার্গোট্রলার চট্টগ্রামের হাতিয়া চ্যানেলে মাঝিমাল্লাসহ ডুবে গেছে। এতে ১৩ জন নিখোঁজ রয়েছেন।

নিখোঁজ মাঝি-মাল্লারা সবাই হাতিয়া ও চট্টগ্রামের বাসিন্দা।

শুক্রবার (৫ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে মেঘনা নদীর মোহনা সংলগ্ন হাতিয়া চ্যানেলে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনাকবলিত কার্গো ট্রলার এমভি রাফসানে থাকা হামিদ নামের কারখানার এক কর্মচারীকে ভাসমান অবস্হায় উদ্ধার করেছে আরেকটি মাছধরার ট্রলার।

সূত্র মতে, কক্সবাজার সদর উপজেলার ইসলামপুর লবণ শিল্প এলাকার মক্কা সল্ট ক্রাশিং ইন্ডাস্ট্রিজ থেকে পরিশোধিত লবণ বোঝাই বোটটি নৌপথে খুলনাস্থ সুপার এক্স লেদার ট্যানারীতে যাচ্ছিল।

মক্কা সল্ট ক্রাশিং ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক সেলিম উল্লাহ কাদেরী জানান, কয়েকদিন আগে মিল থেকে প্রায় সাড়ে ছয় হাজার মণ পরিশোধিত লবণ বোঝাই করে ওই কার্গো বোটটি মিলের জেটিঘাট থেকে যাত্রা শুরু করে। পথিমধ্যে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার শিকার হলে চট্টগ্রামস্হ কর্ণফুলী নদীর মাঝির ঘাটে নোঙ্গর করে। বৃহস্পতিবার আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে পুণরায় খুলনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় বোটটি।

উদ্ধার হওয়া মিল কর্মচারী হামিদ জানান, শুক্রবার সকালে হাতিয়া চ্যানেলে পৌঁছলে ইঞ্জিনে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। একপর্যায়ে ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে যায়। তখন দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে সাগরের প্রবল স্রোতের তোড়ে ক্রমে ডুবে যায় ট্রলারটি।

পরে অনেক সন্ধান করেও মাঝি-মাল্লা ও ট্রলারের কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

ডুবে যাওয়া ট্রলার ও লবণের আনুমানিক মূল্য কোটি টাকারও অধিক হতে পারে বলে ক্ষতিগ্রস্থরা শংকা প্রকাশ করেছেন।

এদিকে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিখোঁজদের কোন সন্ধান না পাওয়ায় তাদের পরিবারে বুকফাটা আহাজারি চলছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্থ মিল পক্ষ।