বিজিবির ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মরলো দুই রোহিঙ্গা মাদক পাচারকারি

টেকনাফে রোহিঙ্গা শিবিরে ‘রোহিঙ্গা ডাকাত’ দলের গুলিবর্ষণ, দুইজনকে গণধোলাই

হেলাল উদ্দিন
নিজস্ব প্রতিনিধি, টেকনাফ
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তের উত্তর সীমান্ত এলাকা চাকমারকুলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা মাদক পাচারকারী নিহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল হতে ইয়াবাসহ দেশে তৈরি অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়েছে। ওই সময় বিজিবির এক জওয়ান আহত হন।

নিহত দুই মাদক পাচারকারি হলেন সাইফুল ইসলাম (২২) ও ফারুক হোসেন (২৫)। তারা দুইজনই থাইংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের তালিকাভূক্ত রোহিঙ্গা মিয়ানমার নাগরিক। বিজিবির দাবি, দুইজনই মাদক পাচারকারী।

কক্সবাজারস্থ বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল আলী হায়দার আচাদ আহমেদ জানান, সোমবার (২২ এপ্রিল) ভোররাতে ইয়াবা আসার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিজিবি সদস্যরা উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তের কেরুনতলী ব্রীজ এলাকায় অভিযানে যান। ওই সময় বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারকারীরা দেশীয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে বিজিবির উপর হামলা চালায়। বিজিবিও আত্মরক্ষায় গুলি চালালে এক পর্যায়ে পাচারকারীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে ২০ হাজার পিস ইয়াবা, বেশকিছু দেশীয় ধারালো অস্ত্রসহ থাইংখালীর ১৩ নাম্বার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের শামসুল আলমের ছেলে সাইফুল ইসলাম (২২) ও ১৯ নাম্বার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নবী হোছনের ছেলে ফারুক হোসেনকে (২৫) গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়।

তিনি জানান, গুলিবিদ্ধ দুইজনকে দ্রুত টেকনাফ উপজেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

তার দাবি, ঘটনার সময় পাচারকারীদের হামলায় গোলাম কিবরিয়া নামের এক বিজিবি জওয়ান আহত হন।

হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (আইসি) দীপংকর রায় জানান, নিহত দুই পাচারকারীর মরদেহ পোস্টমর্টেমের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।