ভ্রাম্যমান আদালতে ৬ মাসের সাজা

পাসপোর্ট করতে এসে ধরা পড়লো রোহিঙ্গা নারী ও ‘নকল’ মা

পেকুয়ায় রোহিঙ্গা প্রেমিকাসহ মাদ্রাসা ছাত্রকে ধরলো জনতা

কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে রোহিঙ্গা নারীকে মেয়ে পরিচয়ে পাসপোর্ট করাতে এসে ওই রোহিঙ্গা নারী ও নকল মা ধরা পড়েছে। পরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদের ৬ মাস করে কারাদন্ড দেয়া হয়।

কক্সবাজার পাসপোর্ট অফিসের সহকারি পরিচালক আবু নাঈম মাসুদ সাংবাদিকদের বলেন,২৮ মার্চ বেলা ১২টার দিকে দুইজন নারী পাসপোর্ট করাতে কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে আসেন। আমরা দেখেই বুঝতে পেরেছিলাম এই মহিলাগুলো একমাস আগে আরেকবার পাসপোর্ট করাতে এসেছিল। তখন তাদের ফেরত দেয়া হয়েছিল, কিন্ত এবার আরো পাকাপোক্ত কাগজপত্র সংগ্রহ এসেছে।

তিনি বলেন, তাদের আচরণ দেখে সন্দেহ হলে ৩ ঘন্টা ধরে জিঙ্গাসাবাদ করা হয়। পরে জানা যায়, তারা মা মেয়ে নয়, বরং রোহিঙ্গা নারীকে মেয়ে সাজিয়ে পাসপোর্ট করাতে এসেছে ভূঁয়া মা।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল আহমেদ বলেন,খবর পেয়ে পাসপোর্ট অফিসে যাই। ওখানে গিয়ে জানতে পারি, হালিমা সাদিয়া (১৮) নামের একজন নারীকে নিজের মেয়ে পরিচয়ে পাসপোর্ট করাতে এসেছে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের বাসিন্দা খোরশিদা বেগম (৪০)।

তিনি জানান, দীর্ঘ জিঙ্গাসাবাদের পর জানা যায় হালিমা সাদিয়ার আসল নাম মিনারা, তার বাবার নাম কাসিম। তাদের আসল বাড়ি মিয়ানমার। ৯ মাস আগে সে মায়ানমার থেকে এসে সাবরাং এলাকার পুরানপাড়া এলাকার সব্বির আহমদের বাড়িতে ছিল। সে এখন সব্বির আহমদের মেয়ে পরিচয়ে পাসপোর্ট করতে এসেছে।

এ ঘটনায় রোহিঙ্গা নারী হালিমা সাদিয়া ওরফে মিনারা এবং খোরশিদা বেগমকে ৬ মাস করে কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।