ভারুয়াখালী: একই ইউনিয়নে দুই চেয়ারম‌্যান!

ভারুয়াখালী: একই ইউনিয়নে দুই চেয়ারম‌্যান!

কক্সবাজার সদরের ভারুয়াখালী ইউনিয়নে দুই চেয়ারম‌্যানের স্বাক্ষরে নাগরিক সুবিধা দেয়ার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে নাগরিক সুবিধা গ্রহণকারি জনসাধারণ চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, ভারুয়াখালী ইউপি চেয়ারম‌্যান শফিকুর রহমান সিকদার নিয়মিত সব ধরণের নাগরিক সুবিধার কাগজপত্রে স্বাক্ষরসহ সব রকম সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। তারপরও অদৃশ্য কারণে ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও প‌্যানেল চেয়ারম‌্যান আবুল কাশেম বিধিবহির্ভূত ভাবে নিজ নামে নাগরিক সনদপত্রসহ বিভিন্ন কাগজপত্র ছাপিয়ে অধ্যাবধি নিজ স্বাক্ষরে বিভিন্ন কাগজপত্র দিয়ে আসছেন।

অপরদিকে চেয়ারম‌্যান শফিকুর রহমান সিকদারও নিয়মিত নিজ স্বাক্ষরে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

একই ইউনিয়নে একই সময়ে দুই চেয়ারম‌্যানের স্বাক্ষরে কাগজপত্র ইস‌্যু করায় নাগরিকরা এসব কাগজপত্র নিয়ে সুবিধা গ্রহণ করতে গিয়ে চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন। নিয়মিত চেয়ারম‌্যানকে স্থানীয় সরকার বা আদালত কর্তৃক অব্যাহতি বা বহিস্কার না করার পরও কিভাবে দায়িত্ব চলমানকালে একজন মেম্বার বিধিবহির্ভূত ভাবে নিজ নামে কাগজপত্র ছাপিয়ে যতসব কাগজপত্র ই‌স‌্যু করে যাচ্ছেন তা নিয়ে জনমনে প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে ইউনিয়নের ভোগান্তির শিকার নাগরিক ও পরিষদের অন্য সদস্যবর্গ চরম বেকায়দায় রয়েছেন।

চেয়ারম‌্যান শফিকুর রহমান সিকদার জানান, তিনি নিয়মিত নাগরিক সেবা দিচ্ছেন এবং কাগজপত্রে স্বাক্ষরও দিচ্ছেন। কোন বিধিতে মেম্বার আবুল কাশেম এসব করে যাচ্ছেন বুঝতে পারছেন না।

এ বিষয়ে তিনি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে অবহিত করেছেন।

ইউনিয়ন পরিষদ সচিব শুভ কান্তি দে জানান, চেয়ারম‌্যান এবং প‌্যানেল চেয়ারম‌্যান-১ এর স্বাক্ষরে পৃথক কাগজপত্র ইস‌্যু হচ্ছে নিয়মিত। তবে চেয়ারম‌্যানকে অব্যাহতি বা বহিষ্কারের মতো কিছু ঘটেনি। তবে প‌্যানেল চেয়ারম‌্যানকেও (১) সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ দায়িত্ব দেননি বলে স্বীকার করেন তিনি।

একই সময়ে দুই চেয়ারম‌্যানের স্বাক্ষরে ইস‌্যু হওয়া কাগজপত্রের স্মারক নাম্বার কিভাবে দেয়া হয় ও এন্ট্রি করা হয় জানতে চাইলে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি পরিষদ সচিব।

অভিযোগ উঠা প‌্যানেল চেয়ারম‌্যান-১ আবুল কাশেম জানান, চেয়ারম‌্যানের অনুপস্থিতিতে অটোমেটিক তিনি দায়িত্ব পালন করতে পারেন এবং তা করছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও তাকে মৌখিক ভাবে দায়িত্ব দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

অন্যদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএইচএম মাহফুজুর রহমান জানান, একই সাথে একই সময়ে দুই চেয়ারম‌্যানের স্বাক্ষরে কাগজপত্র দেয়ার কোন সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, নিয়মিত চেয়ারম‌্যানের পরিবর্তে মৌখিক ভাবে তিনি কাউকে দায়িত্বও দেননি এবং দেয়ার সুযোগও নেই।

অভিযোগ পেলে তিনি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

এদিকে সচেতন ইউনিয়নবাসী এই জালিয়াতি ও অনিয়ম থেকে রক্ষা পেতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।